অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রোহিঙ্গা এবং আটকে পড়া পাকিস্তানিদের কারণে অর্থনীতিতে চাপ সৃষ্টি হচ্ছে- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা 


বাংলাদেশে নবনিযুক্ত নেদারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত অ্যান জিরার্ডভ্যান লিউয়েন রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাৎ করেন - ফটো- পিআইডি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া মিয়ানমারের রোহিঙ্গা এবং আটকে পড়া পাকিস্তানিদের কারণেদেশের অর্থনীতিতে চাপ সৃষ্টি হচ্ছে। বাংলাদেশে নবনিযুক্ত নেদারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত অ্যান জিরার্ডভ্যান লিউয়েন রোববার ঢাকায় শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাৎ করতে আসলে তিনি এমন মন্তব্য করেছেন বলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একজন মুখপাত্র সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা নির্যাতনের শিকার হয়ে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসার পর ইতিমধ্যেই তিন বছর অতিবাহিত হয়েছে এবং তাঁরা এখন দেশের জন্য একটি বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা সেখানকার পরিবেশ ও বন সম্পদ ধ্বংস করছে। রোহিঙ্গা ও আটকে পড়া পাকিস্তানিরা বাংলাদেশের অর্থনীতির ওপর চাপ সৃষ্টি করছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

নেদারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত রোহিঙ্গা ইস্যু সম্পর্কে বলেন এ বিষয়টি নিয়ে তিনি উদ্বাস্তু এবং এনজিও কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেছেন। রোহিঙ্গাদের তাদের নিজস্ব মাতৃভূমি মিয়ানমারে নিরাপদ ও সম্মানজনক প্রত্যাবাসনই এই সমস্যার একমাত্র সমাধান বলে তিনি উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের অধিবাসী রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠীর ওপর দেশটির সামরিক বাহিনী ব্যাপক নির্যাতন, হত্যা, ধর্ষণ এবং তাঁদের বাড়ি ঘরে অগ্নি সংযোগ করলে প্রায় ৮ লাখ রোহিঙ্গা

বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলায় আশ্রয় নেন। মিয়ানমার সরকারের ওপর অব্যাহত আন্তর্জাতিক চাপ এবং রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে মিয়ানমার ও বাংলাদেশের মধ্যে একটি চুক্তি সম্পাদিত হলেও এখন পর্যন্ত একজন রোহিঙ্গাও নিজ আবাসভূমিতে ফিরতে পারেন নাই।

এদিকে, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর যে সব পাকিস্তানী নাগরিক আটকা পড়ে তাঁদের সকলকে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য পাকিস্তান অঙ্গিকার করলেও এখনও অনেকে নিজ দেশে ফিরতে পারেন নাই। এ সকল পাকিস্তানী এবং তাঁদের পরবর্তী বংশধরেরা গত ৫০ বছর যাবত প্রত্যাবাসনের প্রত্যাশায় বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে স্থাপিত ক্যাম্পে বসবাস করছেন।

XS
SM
MD
LG