অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

মানব পাচার রোধে বিশ্ববাসীকে সচেতন ও ঐক্যবদ্ধ করার প্রয়াস নেয়ার আহবান


সেলিম হোসেন

অধুনিক যুগের দাসত্ব রোধ, মানব পাচার, নারী ও শিশু পাচার রোধে যুক্তরাষ্ট্রকে নেতৃত্বের ভূমিকায় এসে, বিশ্ববাসীকে এ বিষয়ে সচেতন ও ঐক্যবদ্ধ করার প্রয়াস নেয়ার আহবান জানালেন, বুধবার ওয়াশিংটনে ক্যাপিটল হিলের ডার্কসেন ভবনে অনুষ্ঠিত, ফরেন রিলেশন্স কমিটির এক শুনানীতে, বক্তারা। সেলিম হোসেন ছিলেন সেখানে। বিস্তারিত শোনা যাক তার কাছে।

please wait

No media source currently available

0:00 0:05:41 0:00
সরাসরি লিংক

Ending Modern Day Slavery: Now is the time" শীর্ষক সেনেট শুনানীতে, মানব পাচার রোধে বিশ্বব্যাপী সরকারী বেসরকারী সংস্থাসমূহ কি ধরণের কাজ করছে, তা তুলে ধরে, বিশ্বব্যাপী মানব পাচার রোধে শিক্ষা ও সচেতনতা বৃদ্ধির আহবান জানালেন দা ম্যাককেইন ইনস্টিটিউটের হিউম্যান ট্রাফিকিং এ্যাডভাইজরি কাউন্সিলের কো-চেয়ার সিন্ডি ম্যাককেইন।

এখনই সময় মানবতার বিরুদ্ধের জঘন্য এই অপরাধ বন্ধের।

পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী নাগরিক সমাজ সাংবাদিক সহ সকল পেশাজীবিদেরকে এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার পরামর্শ দিলেন। সাংবাদিক সমাজ যেনো মানব পাচার বিষয়ে লেখার বিশেষ প্রশিক্ষন নেন সে পরামর্শ দিলেন। যুক্তরাষ্ট্রকে এই মহামারী রোধে নেতৃত্বের ভূমিকায় আসার আহবান জানালেন।

বিশ্বব্যাপী মসানবপাচার রোধের প্রয়াস উৎসাহ ব্যাঞ্জক।

সেনেটর জন ম্যাককেইনের পত্নী নারী ও শিশু অধিকার এ্যাডভোকেট সিন্ডি ম্যাককেইন, বুধবার সেনেট ফরেন রিলেশন্স কমিটির এক শুনানীতে বিশ্বব্যাপী মানব পাচারের ভয়াবহ পরিসংখ্যান তুলে ধরে অবিলম্বে তা রোধে সম্মিলিত প্রয়াস নেয়ার অনুরোধ জানালেন যুক্তরাষ্ট্রের সেনেটরদের প্রতি। সিন্ডি বলেন,

এখনই সময় স্মিলিত প্রয়াস নেয়ার।

সেনেট ফরেন রিলেশন্স কমিটির চেয়ারমান সেনেটর বব কোর্কার বলেন আজ এই শুনানীর মধ্যে দিয়ে এটি আমরা নিশ্চিত করছি যে, পাচারেরর শিকার হওয়া বা দাসত্বের শিকার হওয়া ছেলে মেয়ে বা পুরুর নারীর জীবনে যে ভয়াবহ অবস্থা নেমে আসে তার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষন এবং সে সংকট নিরসনের উপায় বের করার প্রয়াস চালানো হচ্ছে।

সেনেটে এ বিষয়ক একটি বিল পাশ হবে বলে আশা করা হচ।চে। বিশ্বব্যাপী এই খাতে কাজ করার জন্যে অর্থ বরাদ্দ হচ।ছে।

সিন্ডি ম্যাককেইন বলেন, “মানবপাচার বন্ধে বিশেষ করে নারী ও শিশু রোধে তাদের প্রতিষ্ঠান ভর্ন নামের একটি কর্মসূচীর আওতা্য় ৪৯ রাজ্যের পুলিশ বিভাগকে প্রশিক্ষন ও প্রয়োজনীয় উপাদান দিয়েছেন। যৌন কাজের জন্যে ইন্টারনেটে মানুষ কেনাবেচা ও পাচার রোধে উচ্চ প্রযুক্তি ব্যাবহার করা হচ।ছে থর্ন কর্মসূচীতে।

ফ্রি স্লেভস নামক প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী পরচালক মরিস মিডলবার্গ মানব পাচার রোধে তার প্রকতিষ্ঠানের কর্মকান্ডের বিবরণ তুলে ধরেন।

বছরে ১৫ হাজার কোটি ডলার আয় করে পাচারকারী চক্র।

মাত্র ১০ বছর বয়সে ক্যামেরুন থেকে পাচারের শিকার হয়ে ম্যারীল্যান্ডের সিলভার স্প্রিং এর একটি পরিবারের আশ্রয় পাওয়া এলভিন চাম্বো নামের এক ভুক্তভোগী নারী জানালেন সেই পরিবারে তার দাসত্ব বরণ ও জোরপূর্বক শ্রমে বাধ্য করার করুন অভিজ্ঞতার কথা।

কিভাবে এলভিন সেখান থেকে মুক্তি পান, লেখাপড়া করে ডিগ্রি অর্জন করেন এবং পরে পাচারেরর শিকার হওয়া দুর্ভাগা মানুষদেরকে সাহায্যে নিবেদিত হওয়া তার জীবনের কাহিনী তুলে ধরেন্ শুনানীতে।

নামের অপর এক মানব পাচার রোধকালী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মী লিয়াহ তুলে ধরেন যৌন দাসী হয়ে তার পাচার হয়ে যাওয়া এবং সেখান থেকে বেচে আসার গল্প।

সেনেটর কোর্কার বলেন, মানব পাচারেরর বিরুদ্ধ একটি সম্মিলিত বাইপার্টিজান আইন হওয়া দরকার। শুনানীতে অংশ নেনন আরো ৫ জন সেনেটর।

সিন্ডি ম্যাককেইন, বাংলাদেশ মানব পাচার সমস্যার অন্যতম প্রধান শিকার উল্ল্যেখ করে দেশটির সরকার ও নাগরিক সমাজকে সাধারন মানুষকে শিক্ষিত ও সচেতন করার পরামর্শ দেন।

“বিশ্বের বহু দেশে নারী ও শিশুদের প্রতি যে আচরণ করা হয়, তাদেরকে যেভাবে নির্যাতিত হতে হয়, তারা যেভাবে পাচারেরর শিকার হন, দাসত্বের শিকার হন, এই আধুনিক যুগে তা মেনে নেয়া যায় না। বাংলাদেশ সেইসব মানব পাচার হওয়া দেশের অন্যতম প্রধান দেশ যেখানে নারী ও শিশুরা পাচারেরর বিপদ থেকে নিরাপদ নয়”

অভিবাসনের নামে মানব পাচার রোধে তার পরামর্শ কি এমন প্রশ্নে সিন্ডি ম্যাককেইন বলেন: “অন্য বহু দেশেও অভিবাসনের নামে মানব পাচার হয়। আমি জানি বাংলাদেশ থেকেও নারী পুরুষ শিশুদরেকে কাজ করতে পাঠানোর নামে পাচার করা হচ্ছে। তা রোধে প্রতিটি দেশের সরকারেরর পক্ষ থেকে কড়া আইন করতে হবে। সত্রীকার অর্থে, যথার্থ ভূমিকা নিতে হবে সরকারকে। কে কোথায় কিভাবে পাচার হচ।ছে, কারা করছে তা খুজে বের করতে হবে। দেশগুলোর নেতাদের দায়িত্ব তাদের নাগরিকদেরকে নিরাপদ রাখা। সরকারকে এটা নিশ্চিত করতে হবে যে তার নাগরিকেরা পাচারেরর শিকার হচ্ছে না। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ওও তাই হওয়া উচিৎ বলে আমি মনে করি।

বাংলাদেশ সম্পর্কে মনোভাব জানতে চাইলে সিন্ডি ম্যাককেইন বললেন তিনি নিজে একজন বাংলাদেশী কন্যার জননী। ব্রিজিত নামে ২৪ বছর বয়সী বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত একটি কন্যা রয়েছে তার। তিনি বললেন আমার মেয়ে বাংলাদেশকে ভীষনভাবে অনুভব করে। বাংলাদেশের ভালো সংবাদে সে আনন্দিত হয়। খারাপ সংবাদে বেদনায় আপ্লুত হয়। আমার মেয়ের মতো আমিও চাই বাংলাদেশ ভালো থাকুক।

সিন্ডি
please wait
Embed

No media source currently available

0:00 0:00:07 0:00

XS
SM
MD
LG