অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পশ্চিমবঙ্গে এক চতুর্থাংশের পূর্ণাঙ্গ টিকাকরণ হয়েছে


ভারতের নয়াদিল্লিতে অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সেস হাসপাতালের একজন স্বাস্থ্যসেবা কর্মী বায়োটেকের ভ্যাকসিন দেবার পূর্ব মুহূর্তে। (১৬ জানুয়ারি, ২০২১)।

পশ্চিমবঙ্গে টিকার ফার্স্ট ডোজ প্রাপকের সংখ্যা ৬ কোটি পার হলো। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের হিসেব বলছে, জেলাভিত্তিক তথ্য অনুসারে প্রায় ৮৩ শতাংশ টিকার ফার্স্ট ডোজ পেয়েছেন।

১০০ কোটি টিকাকরণের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হয়েছে ভারতে। এর মধ্যে বাণিজ্যনগরী মুম্বই প্রথম যেখানে ১৮ বছরের উর্ধ্বে জনসংখ্যার প্রত্যেককেই কোভিড টিকার ফার্স্ট ডোজ দেওয়া শেষ হয়েছে। টিকাকরণে গতি আনতে বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মন্ত্রী। বছর শেষের আগেই দেশের প্রাপ্তবয়স্কদের সকলকেই টিকার অন্তত একটি করে ডোজ দেওয়ার বৃহত্তর পরিকল্পনা আছে মোদী সরকারের। সেই লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গও। তবে দুটি ডোজ মিলিয়ে যদি হিসেব করা হয় তাহলে এখনও অবধি রাজ্যে টিকাকরণ হয়েছে এক চতুর্থাংশের। সেকেন্ড ডোজ এখনও পানননি অনেকে।

স্বাস্থ্য দফতরের রিপোর্ট বলছে, রাজ্যে এরই মধ্যে ৬ কোটি মানুষকে টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে। সেকেন্ড ডোজ পেয়েছেন ২ কোটি ৪৩ লক্ষের কাছাকাছি। রাজ্যের জনসংখ্যা ১০ কোটি ধরে হিসেব করলে দেখা যাবে এক চতুর্থাংশের মতো টিকাকরণ শেষ হয়েছে।

ডিসেম্বরের মধ্যে রাজ্যবাসীকে কোভিড ভ্যাকসিনের একটি করে ডোজ দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা আছে নবান্নেরও। টিকাদানে গতি আনতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে অসুস্থ ও শয্যাশায়ীদের টিকার ডোজ দেওয়ার বড় উদ্যোগও নিতে চলেছে রাজ্য সরকার। স্বাস্থ্য দফতরের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রথম ডোজ নেওয়ার পরে দ্বিতীয় ডোজ পাননি এমন লোকজনের সংখ্যাও অনেক। কোথায় টিকার ঘাটতি হচ্ছে, ডোজ পাচ্ছেন না মানুষজন সেইসব খোঁজও নেওয়া হবে।

টিকাকরণের হারে ভারতের মধ্যে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে উত্তরপ্রদেশ। মোট টিকাকরণ হয়েছে ১৪ কোটির বেশি, ১০ কোটি মানুষ প্রথম ডোজ পেয়ে গেছেন। দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ৩ কোটির বেশি। এর পরেই মহারাষ্ট্র যেখানে মোট টিকাকরণ হয়েছে ১০ কোটির বেশি। প্রথম ডোজ পেয়েছেন ৬ কোটির কাছাকাছি, সেকেন্ড ডোজ ৩ কোটি। পিছিয়ে নেই পশ্চিমবঙ্গও। চলতি বছর ১৬ জানুয়ারি থেকে সারা দেশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গেও টিকাকরণ শুরু হয়। সেই থেকে গত ৩০ এপ্রিল অবধি এক কোটি টিকাকরণ হয় বাংলায়। আর এখন সেই সংখ্যাই ৮ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। স্বাস্থ্য দফতর জানাচ্ছে, রাজ্যে এরই মধ্যে ৮ কোটি ৪৩ লক্ষ মানুষের টিকাকরণ হয়ে গেছে। এর মধ্যে প্রথম ডোজ প্রাপকের সংখ্যা প্রায় ৬ কোটি, সেকেন্ড ডোজ পেয়েছেন ২ কোটি ৪৩ লক্ষের কাছাকাছি।

XS
SM
MD
LG