অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রাখাইনে রোহিঙ্গা হত্যার বিষয়ে মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের ফেসবুক বার্তা: ড. আমেনা মহসিনের বিশ্লেষণ


FILE - A Rohingya Muslim girl carries her baby sister as she walks across a stream of drainage water at the Thaingkhali refugee camp on Nov. 22, 2017.

মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা হত্যায় সে দেশটির সেনাবাহিনী যে জড়িত তা অবশেষে মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের দফতর থেকেই স্বীকার করা হয়েছে। সেনা প্রধান মিন অং লেইং এক ফেসবুক বার্তায় ওই হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করে বলেছেন যে, গত বছর ২ সেপ্টেম্বর রাখাইনের ইন দিন গ্রামে হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়েছিল-যাতে ১০ জন রোহিঙ্গাকে হত্যা করা হয়। আর ওই হত্যাকান্ড ঘটে রাখাইনে একটি হত্যাকান্ডকে কেন্দ্র করে স্থানীয় এবং সেনাবাহিনীর সাথে সৃষ্ট উত্তেজনার পর। তবে সেনা প্রধানের ভাষ্য মোতাবেক নিহতরা তার ভাষায় ’বাঙালী সন্ত্রাসী’ ছিলেন।
অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি জানিয়েছে। মানবাধিকার সংস্থাটির দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের পরিচালক জেমস গোমেজ বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী নীতিবিবর্জিত ও অন্যায় পদক্ষেপের বিষয়ে ঢালাও অস্বীকারের নীতি থেকে সরে এসেছে। তবে এ ঘটনা বিশাল ও ভয়াবহ ঘটনাবলীর সামান্য একটি অংশ মাত্র। তিনি বলেন, তারা জাতিগত শুদ্ধি অভিযানের অংশ হিসেবে যে নির্মম নির্যাতনের ঘটনা ঘটিয়েছে এবং এতে গত বছরের আগস্ট থেকে ৬ লাখ ৫৫ হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে জোরপূর্বক দেশ থেকে বিতারণ করা হয়-সে সব বিষয়ে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্তের প্রয়োজন।
বাংলাদেশেও বিশেষজ্ঞ ও বিশ্লেষকগণ আন্তর্জাতিক পর্যায়ের নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করেছেন। এ সম্পর্কে বিশ্লেষণ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক এবং বিশ্লেষক ড. আমেনা মহসিন। তবে ঢাকায় সরকারী ভাবে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এই স্বীকারোক্তির ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করা হয়নি।
ঢাকা থেকে বিস্তারিত জানিয়েছেন আমীর খসরু।

please wait

No media source currently available

0:00 0:03:29 0:00

XS
SM
MD
LG