অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আজ যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে রাষ্ট্রীয় পরিস্থিতি নিয়ে ভাষন দেবেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প


Trump

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আজ মঙ্গলবার ওয়াশিংটন সময় রাতে যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে রাষ্ট্রীয় পরিস্থিতি নিয়ে ভাষন দেবেন। এ ভাষন বৈদ্যুতিন মাধ্যমে সরাসরি প্রাচারিত হবে । উল্লেখ করা যেতে পারে , এই যে এখন এ কংগ্রেসে তিনি বাৎসরিক এ পরিস্থিতির খতিয়ান দিতে চ’লেছেন, এ কংগ্রেসে রয়েছেন নব নির্বাচিত রেকর্ড সংখ্যক নারী প্রতিনিধি, রয়েছেন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়েরও রেকর্ড সংখ্যক প্রতিনিধি । ক্যাপিটল হিলের কংগ্রেস ভবনের অধিবেশন কক্ষে যে মঞ্চে দাঁড়িয়ে ভাষন দেবেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তারই পিছনের অংশে পাশাপাশি চেয়ারে বসে রইবেন প্রতিনিধি পরিষদের স্পীকার ন্যান্সী পালৌসী- আর সেনেট সভার আলংকারিক প্রেসিডেন্ট যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স । মূলত: এ ভাষন দেওয়ার কথা ছিলো জানুয়ারীর ২৯ তারিখে । কিন্তু দেওয়াল নির্মানের অর্থায়ন এবং তারই সূত্র ধ’রে শাট ডাউনের নির্মম রাজনৈতিক লড়াইয়ের মাঝখানে পড়ে গিয়ে রাষ্ট্রীয় পরিস্থিতির খতিয়ান বিষয়ক বাৎসরিক এ SOTU বা State of the Union ভাষন আজ রাত অবধি সপ্তাহ খানেক বিলম্বিত হ’লো ।

সরকারী সূত্রে জানা গিয়েছে – এ বছরের SOTU বা State of the Union ভাষনের মূল সূর হ’লো ‘মহত্বকে স্বাগতম ’ । ঐ সূত্র থেকে বলা হ’চ্ছে- অভিবাসন ও সীমান্ত নিরাপত্তা-চীনের সঙ্গে বানিজ্য রফার নিরিখে এ্যামেরিকার শ্রমজিবীদের স্বার্থের সূরক্ষা-ন্যাফটা চুক্তির রূপান্তরণ-স্বাস্থ পরিচর্য্যা ও ওষুধ খাতের ব্যয় হ্রাস করা –এবং বিদেশে, সীমাহিন লড়াই-ফাসাদ রূখতে কূটনৈতিক ও সামরিক উদ্যোগ প্রয়াস গ্রহন বিষয়ে প্রেসিডেন্ট তাঁর নীতি অবস্থান তুলে ধরবেন । ঐ সূত্র থেকে এও বলা হয়- প্রেসিডেন্ট তাঁর ভাষনে, সংহতি- দ্বিদলীয় সহাবস্থান এবং আশাবাদী সূর মূর্ছনা নিয়ে আসবেন ।

তবে, বিশেষজ্ঞদের ধারণা- ট্রাম্পের লক্ষ হবে তাঁর শক্তির বুনিয়াদ যে জনগোষ্ঠী ঐ সেই তাদের মজবুত অবস্থানের কথাই জোরেশোরে তুলে ধরবার প্রয়াস । বলা হ’চ্ছে – নির্বাচনী প্রচারণাকালে যে সূর শোনা যেতো সেটারই প্রতিধ্বনী পাওয়া যাবে এ ভাষনে।

প্রতিবারের মতো এবারও প্রেসিডেন্ট এবং সাংষদদের তরফ থেকে কিছু সংখ্যক অতিথি উপস্থিত থাকবেন – যাঁরা কিনা বিশেষ কোনো কোনো বিষয়ে আলোকপাত করতে প্রেসিডেন্টের ভাষনের মাঝে মাঝে তাঁদের সংক্ষিপ্ত বক্তব্যের অবতারণা ক’রবেন । স্বভাবত:ই প্রেসিডেন্টের ভাষনের পর পরই বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে – বিশেষ করে বেতার – টেলিভিশনে ভাষন নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা-পর্যালোচনা প্রচারিত হয়ে থাকে।

XS
SM
MD
LG