অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বুরকিনা ফাসোতে প্রথম সফরে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে জোরালো ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানালেন ব্যাচেলেট


বুরকিনা ফাসোর ওয়াগাডুগুতে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার, মিশেল ব্যাচেলেট। বুধবার ১ ডিসেম্বর, ২০২১।

বুরকিনা ফাসোর ইসলামপন্থী জঙ্গিদের সাথে ক্রমবর্ধমান সংঘাতে, ভুক্তভোগীদের রক্ষার জন্য আরও জোরালো প্রচেষ্টার আহ্বান জানিয়েছেন, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট। অধিকার গোষ্ঠীগুলি বলছে, ইসলামিক স্টেট এবং আল-কায়েদার সাথে যুক্ত সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলির সাথে দীর্ঘকাল ধরে চলা সংঘাতের ফলে, মানবাধিকার সমুন্নত রাখতে বছরের পর বছর ধরে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে বুরকিনা ফাসো।

বুরকিনা ফাসোতে তিন দিনের সফর শেষে বুধবার ওয়াগাডুগুতে একটি সংবাদ সম্মেলন করেন মিশেল। দেশটিতে জাতিসংঘের কোনো মানবাধিকার প্রধানের এটিই ছিল প্রথম সফর। এর আগে, বুরকিনা ফাসো সরকারকে সমর্থন করার উদ্দেশ্যে ওই দেশে তাদের কার্যালয় স্থাপন করতে যাচ্ছে বলে, গত অক্টোবরে সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়।

আল-কায়েদা, ইসলামিক স্টেট গ্রুপ এবং স্থানীয় দস্যুদের সাথে যুক্ত সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলির সাথে ছয় বছর ধরে চলা সংঘর্ষকে “চ্যালেঞ্জিং প্রেক্ষাপট” হিসেবে উল্লেখ করেছেন ব্যাচেলেট। তিনি সহিংস চরমপন্থী গ্রুপ, স্থানীয় প্রতিরক্ষা গোষ্ঠী, জাতীয় নিরাপত্তা এবং প্রতিরক্ষা বাহিনী দ্বারা মৃত্যুদণ্ড, অপহরণ, জোরপূর্বক গুম এবং যৌন সহিংসতার অভিযোগের বিষয়টি উল্লেখ করেছেন।

সহিংসতার হাত থেকে রক্ষা পাওয়া একজন নারী এই বছরের শুরুর দিকে ভিওএ-কে বলেছিলেন, কীভাবে তার স্বামীকে এক রাতে উয়াহিগুয়া শহরের কাছে অভ্যন্তরীণ ভাবে বাস্তুচ্যুতদের ক্যাম্প থেকে অপহরণ করা হয়েছিল।

কে তার স্বামীকে নিয়ে গেছে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমি জানি না তারা স্বেচ্ছাসেবক নাকি নিরাপত্তাকর্মী, তবে আমি জানি তারা সন্ত্রাসী ছিল না”। তিনি আরও বলেন, “আমার এবং আমার পরিবারের যেন কিছুই না হয়, আমি কেবল সেই নিশ্চয়তা চাই। সরকারের কাছে আমার বার্তাটি হল, আমরা এখন যেখানে আছি, সেখানেই আমাদের বেঁচে থাকা নিশ্চিত করা”।

এই অপহরণের বিষয়ে সাক্ষাৎকার নেয়ার অনুরোধ জানালে, বুরকিনাবে কর্তৃপক্ষ তাতে কোনও সাড়া দেয়নি।

মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলি বলেছে, বুর্কিনা ফাসোতে নিরাপত্তা বাহিনী দ্বারা বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড এবং অনেককেই জোরপূর্বক গুম করার ফলে সেখানে শত শত পরিবার তাদের স্বজনদের হারিয়েছে।

বেসামরিক জনগণের উপর হামলা প্রতিরোধে জাতিসংঘের নতুন মানবাধিকার কার্যালয় কী করতে পারে, জানতে চাইলে ব্যাচেলেট বলেন:

“আমরা বিশ্বাস করি, এই হামলা অবিলম্বে বন্ধ করা উচিত। দেশটির জনগণকে এই আক্রমণের হাত থেকে অবশ্যই রক্ষা করতে হবে ... এবং আজ সুশীল সমাজের দলগুলিও বলেছে, এখানে ন্যায়বিচার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সে কারণেই আমরা সরকারকে বলেছি, সকল অপরাধীকে অবিলম্বে বিচারের আওতায় আনা হোক”।

উল্লেখ্য, বুরকিনা ফাসোতে বেসামরিক নাগরিকদের বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের জন্য কাউকেই এখন পর্যন্ত দোষী সাব্যস্ত করা হয়নি।

আল-কায়েদা এবং ইসলামিক স্টেটের সাথে যুক্ত সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলির সাথে সংঘর্ষ শুরু হওয়ার পর, গত জুনের শুরুতে, বুরকিনা ফাসো বেসামরিক নাগরিকদের উপর সবচেয়ে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা প্রত্যক্ষ করেছে। ওই হামলায় সোলহান গ্রামে অন্তত ১৩৮ জন মানুষকে হত্যা করা হয়।

XS
SM
MD
LG