অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশের রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ ভবিষ্যৎ প্রজন্মের সমূহ ক্ষতি করবে


বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে সুন্দরবনের সন্নিকটে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ হলে এর ফলে প্রায় ৬,০০০ জন লোকের অকাল মৃত্যু এবং ২৪,০০০ শিশু কম ওজন নিয়ে জন্মাবে।
পরিবেশ বিষয়ে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় সংস্থা গ্রিনপিস এর কয়লা এবং বায়ু দূষণ বিশেষজ্ঞ লরি মাইলিভিরতা-র রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে করা গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। ঢাকায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে লরি মাইলিভিরতা মিয়ানমার থেকে স্কাইপের মাধ্যমে প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন যাতে উল্লেখ করা হয় বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি চালু হওয়ার পর ৪০ বছরের মধ্যে এই বিপর্যয়ের ঘটনা ঘটবে। সুন্দরবন রক্ষা জাতিয় কমিটি, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন, এবং ডক্টর ফর হেলথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট গ্রিন পিসের প্রতিবেদনটি প্রকাশের উদ্দেশ্যে সংবাদ সম্মেলনটির আয়োজন করে।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, বিদ্যুৎ কেন্দ্রেটির দরপত্রে যে তথ্য দেওয়া রয়েছে তার চেয়ে ৫ থেকে ১০ গুণ বেশি সালফার ডাইঅক্সাইড,নাইট্রোজেন অক্সাইড, ধূলা এবং পারদ নিঃসরিত হবে।সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটির অনুরোধে লরি মাইলিভিরতা এই গবেষণাটি প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন যাতে বলা হয়েছে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি থেকে অতি উচ্চমাত্রায় ‘স্নায়ুবিষ’ বা পারদ বের হবে যা শিশুদের মস্তিষ্ক ও স্নায়ুতন্ত্র ক্ষতিগ্রস্ত করবে। এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পারদের দূষণের কারণে সুন্দরবনের চারপাশের ৭০ কিলোমিটার এলাকার মাছ খাওয়ার অনুপযোগী হয়ে পড়বে বলে উল্লেখ করে এতে বলা হয় কেউ যদি ওই মাছ খায় তাহলে তিনি স্নায়ু জনিত নানা রোগে আক্রান্ত হবেন।

নির্মিত হওয়ার পর এর ৪০ বছরের আয়ুষ্কালে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটিতে ব্যবহৃত কয়লা থেকে ১০,০০০ কিলোগ্রাম পারদ নির্গত হবে যা এর সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর এবং সুন্দরবনের জীববৈচিত্র এবং প্রাণীদের জীবন হুমকির মুখে ঠেলে দিবে এবং লক্ষ লক্ষ মানুষের ওপর খারাপ প্রভাব ফেলবে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। গ্রিনপিসের গবেষণায় বলা হয়, রামপালের বায়ুদূষণের কারণে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ (স্ট্রোক), ফুসফুসের ক্যানসার এবং বয়স্কদের হৃদযন্ত্রসহ শিশুদের বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি বাড়াবে।সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক সুলতানা কামাল বলেন, শুধু রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নয় ,আমরা দেশেরকোথাও কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র হোক এটা চাই না।বলেন, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রটিতে যে ধরনের প্রযুক্তি কেনা হচ্ছে, তা খুবই পুরনো বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন সরকারের তরফ থেকে অসত্য তথ্য দিয়ে রামপাল প্রকল্পের ন্যায্যতা প্রমাণের
চেষ্টা করা হচ্ছে। তিনি বলেন গ্রিনপিসসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও দেশি সংস্থার গবেষণায় আমরা দেখতে পাচ্ছি এই প্রকল্পের কারণে সুন্দরবন তো বটেই, সারা দেশের মানুষের ক্ষতি হবে। কয়লার দূষণের কবলে পড়ে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম একটি সমূহ ক্ষতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

XS
SM
MD
LG