অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কেন, কখন ময়নাতদন্ত করা হয়?


ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গ

কোন ব্যক্তির মৃত্যু নিয়ে কোন সন্দেহ তৈরি হলে বা কারো অস্বাভাবিক মৃত্যু হলে মূলত মৃত্যুর সঠিক কারণ জানার জন্যই পোস্টমর্টেম করা হয়। এছাড়াও যেকোনমৃত্যুর প্রকৃত কারণ নির্ধারণ, মৃত্যুর ধরন, অজ্ঞাত পরিচয়ের মৃতদেহ হলে সেই মৃতদেহের বিস্তারিত তথ্যের জন্য পোস্টমর্টেম করা হয়ে থাকে। চিকিৎসকদের এই কাজটি করতে গিয়ে মরদেহের নানা অংশ কাটতে হয় এবং পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠাতে হয়। তবে, মর্গে পোস্টমর্টেম করার জন্য যেসব লাশ আসে তা সবই পুলিশ কেইস।

ফরেনসিক মেডিসিন এবং টেকনোলজি বিভাগের হেড ডাক্তার মোহাম্মদ মাকসুদ
ফরেনসিক মেডিসিন এবং টেকনোলজি বিভাগের হেড ডাক্তার মোহাম্মদ মাকসুদ

এই বিষয়টি সম্পর্কে জানার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন এবং টেকনোলজি বিভাগের হেড ডাক্তার মোহাম্মদ মাকসুদের সঙ্গে কথা বলেছেন ভয়েস অফ আমেরিকার পক্ষ থেকে নাসরিন হুদা বিথী। ডাক্তার মোহাম্মদ মাকসুদের কাছে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে।

কতগুলো কেইস মর্গে আসে?

ডাক্তার মোহাম্মদ মাকসুদ বলেন- প্রতিদিন আনুমানিক ৫টা কেইস মর্গে আসে। সারা বছরে প্রায় তিন হাজারের মতো কেইস আসে। তবে এখন করোনার সময় এ ধরনের কেইস একটু কমেছে। গত এক বছরে ২২শ এর মত কেইস এসেছে।

যে কোনো দুর্ঘটনা কবলিত লাশ প্রথম থানায় নিয়ে আসা হয়। তারপর থানায় সুরতহাল রিপোর্ট করার পর মরদেহ পাঠানো হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে। এরপর ফরেনসিক বিভাগের ডাক্তাররা পোস্টমর্টেম করার জন্য কিছু কিছু স্যাম্পল প্যাথলজির বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টে পাঠান। যেমন লিভারের রোগ দেখা দিয়েছে বা লিভার সিরোসিস হয়েছে। আবার হৃদপিন্ডে কোনকিছু পাওয়া গেলে সেটা দেখতে হয়। শরীরের কোন বুলেট পাওয়া গেলে সেটা বের করে কোর্টে জমা দিতে হয়। এসব কারণে প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষা করা হয়।

কখন, কি ধরণের পরীক্ষা করা হয়ে থাকে?

অনেক সময় মরদেহ থেকে ডিএনএ এনালাইসিস করা হয়। ধর্ষণ করা হয়েছে কিনা, বিষ খাওয়ানো হয়েছে কিনা বা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারা হয়েছে কিনা এজন্য পাকস্থলী, লিভার, কিডনি কেমিকাল পরীক্ষা করতে মহাখালীর ইনস্টিটিউট অফ পাবলিক হেলথে কেমিক্যাল এনালাইসিস ডিপার্টমেন্টে পাঠানো হয়। ঢাকা মেডিকেলে প্যাথলজি, মাইক্রোবায়োলজি ও ডিএনএ টেস্ট করা হয়। এছাড়া মালিবাগেও পাঠানো হয়। সেখান থেকে পরীক্ষা করে রিপোর্ট দেয়া হয়। ফরেনসিক বিভাগ তার উপর ভিত্তি করে রিপোর্ট লিখে ডেথ সার্টিফিকেট দেয়।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গের প্রবেশ পথ
ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গের প্রবেশ পথ

রিপোর্ট পেতে কতদিন সময় লাগে?

এই রিপোর্ট গুলো পেতে সর্বনিম্ন ২/৩ দিন থেকে সর্বোচ্চ দুই তিন মাস সময় লাগে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এর চেয়েও বেশি সময় লাগে। কখনও লাশ দাফন হয়ে যাওয়ার পর পুলিশ কেইস হয়। তখন ম্যাজিস্ট্রেটের অনুমতি সাপেক্ষে লাশ কবর থেকে তোলা হয়। ততদিনে লাশ পচে গলে দুর্গন্ধ বের হয়ে যায়। সেই অবস্থায়ও পরীক্ষা করতে হয়। অনেক সময় এক বছর পর কবর থেকে লাশ উঠিয়ে ময়নাতদন্ত জন্য মর্গে আনা হয়। তখন হাড়গোড় আর কিছুই থাকে না।

বেওয়ারিশ লাশের ব্যাপারে কি করা হয়ে থাকে?

অনেক বেওয়ারিশ লাশ পুলিশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলের ফরেনসিক বিভাগে নিয়ে আসেন। তখন পরীক্ষা করে রেজাল্ট দিয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। প্রতিবছর যদি আড়াই থেকে তিন হাজার লাশ আসে, তার মধ্যে দু-তিনশ আসে বেওয়ারিশ লাশ।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গ
ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গ

ফরেনসিক বিভাগে কয়জন কাজ করেন?

ডাক্তার মোহাম্মদ মাকসুদ বলেন ফরেনসিক বিভাগে ৬জন ডাক্তার এবং দুইজন ডোম আছেন। এত অল্প সংখ্যক ডাক্তার নিয়ে রীতিমত হিমশিম খেতে হচ্ছে। ঈদ পূজা পার্বণ বলে তাদের কিছু নেই। ৩৬৫ দিনই কাজ করতে হয়।

করোনা রুগী, এইডসের রুগীর পোস্টমর্টেম করতে হয় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে। এই বিভাগে খুব চ্যালেঞ্জের সাথে কাজ করতে হয়। শুধু তাই না এই প্রক্রিয়া শেষে ডাক্তারদের আবার কোর্টে সাক্ষ্য দেয়ার জন্য যেতে হয়। তাই অনেক সময় কাজের ব্যাঘাত ঘটে। অন্যান্য বিভাগের ডাক্তাররা চেম্বার করতে পারে বিধায় আর্থিক দিক দিয়ে তারা স্বচ্ছল অবস্থানে থাকেন। তাই ফরেনসিক বিভাগে ডাক্তারি পড়ার আগ্রহ কম। তিনি বলেন ফরেনসিক বিভাগে আরো কিছু ডাক্তার থাকলে তাদের কাজ করতে সুবিধা হত।

XS
SM
MD
LG