অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

২০২১ সালে বিশ্বব্যাপী ২ ট্রিলিয়ন ডলার রাজস্ব হারাবে পর্যটন খাত: জাতিসংঘ


মিশরের লুক্সরে এল কেব্বাশ রোড নামে পরিচিত স্ফিংক্সের অ্যাভিনিউ পুনঃখোলার একদিন পর, শুক্রবার পর্যটকরা কার্নাক মন্দির পরিদর্শন করেন। ২৬ নভেম্বর, ২০২১।

বিশ্বব্যাপী করোনভাইরাস মহামারীর প্রভাবে ২০২১ সালে পর্যটন খাত ২ ট্রিলিয়ন ডলার রাজস্ব হারাবে। জাতিসংঘের পর্যটন সংস্থা ইউএনডব্লিউটিও সোমবার, এই খাতের পুনরুদ্ধারকে "ভঙ্গুর" এবং "ধীর" বলে অভিহিত করেছে।

মাদ্রিদ-ভিত্তিক ওয়ার্ল্ড ট্যুরিজম অর্গানাইজেশনের এই পূর্বাভাসটি এমন এক সময়ে এলো, যখন ইউরোপ জুড়ে নতুন করে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পাশাপাশি বিশ্বজুড়ে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ছে।

২০১৯ সালে মহামারী আঘাত হানার আগে ১.৫ বিলিয়ন পর্যটক বিশ্বব্যাপী ভ্রমণ করেছেন। ২০২০ সালের মতো এ বছরও সেই হার হবে নিম্নগামী। সংস্থাটির তথ্য অনুসারে, চলতি বছর আন্তর্জাতিক আগমন ৭০%-৭৫% কমে যাবে।

ইতিমধ্যে মহামারীজনিত কারণে গত বছর বিশ্বব্যাপী পর্যটন খাত ২ ট্রিলিয়ন ডলার রাজস্ব হারিয়েছে। ইউএনডব্লিউটিও’র মতে, এটি করোনা কালে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ খাতগুলির মধ্যে একটি।

পর্যটনের প্রসারে কর্মরত জাতিসংঘের এই সংস্থাটির কাছে এমন কোনও সমীক্ষা নেই, যা থেকে আভাস দেয়া যাবে আগামী বছর এই খাতটি কীভাবে কাজ করবে। এছাড়া এর মধ্যমেয়াদী দৃষ্টিভঙ্গিও উত্সাহবাঞ্জক নয়।

ইউএনডব্লিউটিও এক বিবৃতিতে বলেছে, “সাম্প্রতিক উন্নতি সত্ত্বেও, বিশ্বজুড়ে অসম টিকা দেওয়ার হার এবং নতুন নতুন কোভিড স্ট্রেন” যেমন ডেল্টা ভেরিয়েন্ট এবং ওমিক্রন “পর্যটন খাতের ধীর এবং ভঙ্গুর পুনরুদ্ধারের উপর প্রভাব ফেলতে পারে”।

ইউএনডব্লিউটিও প্রধান জুরাব পোলোলিকাশভিলি বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে বেশ কয়েকটি দেশে নতুন ভাইরাস বিধিনিষেধ এবং লকডাউনের প্রত্যাবর্তনের ফলে “এটি একটি অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতির মুখে পড়েছে”।

মঙ্গলবার মাদ্রিদে ডব্লিউটিও’র বার্ষিক সাধারণ অধিবেশন শুরুর আগে তিনি বলেন, “বর্তমানে পর্যটন শিল্প একটি ঐতিহাসিক সংকটে রয়েছে, তবে এই শিল্প বেশ দ্রুতই সংকট উত্তরণে সক্ষম হবে”।

“২০২২ সাল, ২০২১ এর চাইতে অনেক ভালো হবে” বলে তিনি আশাবাদ বাক্ত করেন।

XS
SM
MD
LG