অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

মিয়ানমারে মানবিক সহায়তার নিরবচ্ছিন্ন বিতরণ নিশ্চিত করতে সেনাবাহিনীর প্রতি জাতিসংঘের আহ্বান


এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে শরণার্থীরা, যারা মিয়ানমার সেনাবাহিনী এবং বিদ্রোহী গোষ্ঠীর মধ্যে লড়াইয়ের কারণে পালিয়ে গেছে তারা থাইল্যান্ড-মিয়ানমার সীমান্তে, থাইল্যান্ডের মায়ে সোটে, থাইল্যান্ড থেকে সাহায্য পাওয়ার জন্য নদী পাড়ি দিচ্ছে। ৭ই জানুয়ারী, ২০২২, ছবি-রয়টার্স

জাতিসংঘ মিয়ানমারের সামরিক কর্তৃপক্ষকে সংঘাত, দারিদ্র্য, তীব্র ক্ষুধা ও অসুস্থতায় ভুগছেন এমন লক্ষ লক্ষ মানুষের জন্য মানবিক সহায়তার নিরবচ্ছিন্ন বিতরণের অনুমতি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

সামরিক অভ্যুত্থান গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারের পতন ঘটানোর এক বছর পর, জাতিসংঘের কর্মকর্তারা সতর্ক করেছেন যে দেশটি গৃহযুদ্ধের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

জাতিসংঘের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে ক্রমবর্ধমান সংকটে আনুমানিক প্রায় দেড় কোটি মানুষ নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। আর এই দূর্যোগে সাড়া দেওয়ার লক্ষ্যে জাতিসংঘ ৬০ লক্ষ মানুষের ত্রাণ সরবরাহের জন্য রেকর্ড পরিমাণ ৮২ কোটি ৬০ লক্ষ ডলার দানের আবেদন করেছে।

মানবিক বিষয়ক সমন্বয়ে দফতরের মুখপাত্র জেনস লায়েরকে বলেছেন, গত বছরের অভ্যুত্থানের ফলে সৃষ্ট অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতা, কোভিড-১৯ এর বিধ্বংসী প্রভাবের সাথে মিলিত হয়ে মিয়ানমারের আড়াই কোটি জনসংখ্যার অর্ধেককে দারিদ্র্যের মধ্যে ফেলে দিয়েছে।

তিনি বলেন, "চাকরি এবং আয় হ্রাস এবং মূল্যবৃদ্ধির কারণে অনেকেই তাদের পরিবারকে খাওয়ানোর সামর্থ্য রাখে না,"। প্রায় দেড় কোটি মানুষ কিছুটা কিংবা গুরুতরভাবে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার শিকার , এবং শিশুদের মধ্যে অপুষ্টির অবস্থার অবনতি হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে যদি না আমরা পিতামাতাদের তাদের বাচ্চাদের জন্য পর্যাপ্ত পুষ্টিকর খাবার সরবরাহ করতে সহায়তা করি।"

জাতিসংঘের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেনা দখলের পর থেকে ৪,০০,০০০ এরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, হাজার হাজার মানুষ ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিতে বসবাস করছে, আবার অনেকে আশ্রয়ের খোঁজে থাইল্যান্ড ও ভারতে পালিয়েছে।

লায়েরকে স্বীকার করেছেন যে জাতিসংঘ মিয়ানমারের জন্য অনেক অর্থ চাইছে এমন কোনো নিশ্চয়তা ছাড়াই যে এটি তাদের কাছে পৌঁছাতে সক্ষম হবে , তবে তিনি বলেছেন যে আবেদনটি প্রয়োজনের ভিত্তিতে করা হয়েছে, ত্রাণ সরবরাহের সক্ষমতার উপর নয়।

তিনি বলেন, "এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে কর্তৃপক্ষের সাথে সম্পর্ক বিশেষভাবে ভাল নয়। "আমরা প্রত্যেকের কাছ থেকে এটি শুনেছি। আমরা বিশেষ করে শহুরে এলাকায় সহায়তা দেওয়ার চেষ্টা করছি, যা এই সংকটে এক ধরণের নতুন বোঝা। শহরের জনসংখ্যা এবং চাহিদা বিশেষ উদ্বেগের বিষয়।"

জাতিসংঘের মানবাধিকার কার্যালয় গত বছরের অভ্যুত্থানের পর থেকে ১,৫০০ বেসামরিক লোকের মৃত্যু নথিভুক্ত করেছে, বলছে যে রাস্তায় বিক্ষোভ চলাকালীন বা বিরোধীদের সন্ধানে নিরাপত্তা বাহিনী বাড়ি বা গ্রামে অভিযান চালানোর সময় এ সব লোক নিহত হয়েছে। তাতে জানানো হয় যে সামরিক হেফাজতে থাকাকালীন নির্যাতনের কারণে আনুমানিক ২০০ জন নিহত হয়।

XS
SM
MD
LG