অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জরিপে প্রায় সব আফগান বলছে যে তারা দুর্ভোগের শিকার


 আফগানিস্তানের কালা-ই-নাউতে, শত শত আফগান পুরুষ মানবিক সহায়তার জন্য আবেদন করার জন্য জড়ো হচ্ছে। ১৪ই ডিসেম্বর, ২০২১, ছবি-এপি
আফগানিস্তানের কালা-ই-নাউতে, শত শত আফগান পুরুষ মানবিক সহায়তার জন্য আবেদন করার জন্য জড়ো হচ্ছে। ১৪ই ডিসেম্বর, ২০২১, ছবি-এপি

একটি নতুন জরিপে এ রকম ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যে প্রায় সমস্ত আফগান, যারা ইতোমধ্যেই কয়েক দশকের যুদ্ধ এবং দারিদ্র্যের কারণে নিদারুণ নিষ্ঠুরতার শিকার হয়েছে যে তাদের জীবনযাত্রার অবস্থা এমন পর্যায়ে খারাপ হয়েছে যে তা যন্ত্রণাদায়ক হয়ে উঠেছে।

গ্যালাপ সমীক্ষায় বলা হয়েছে, "৯৪ শতাংশ আফগান তাদের জীবনকে এতটাই নিম্ন পর্যায়ের বলে স্থির করেছে যা দুর্ভোগ পোহানোর জন্য যথেষ্ট খারাপ " তারা আরো বলে যোগ করে এই শতাংশের হিসেবটা "শুধুমাত্র দেশের জন্য উচ্চ রেকর্ড নয়, ২০০৫ সাল থেকে যে কোনো দেশের জন্য সর্বোচ্চ। "

গ্যালাপ থেকে জুলি রে ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেছেন, ১৫ বছর বা তার বেশি বয়সী ২০০০ আফগানকে দুই দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল যা গত বছরের ৯ই আগস্ট থেকে ২৯শে সেপ্টেম্বরের মধ্যে আফগানিস্তানের অভ্যন্তরে পরিচালিত হয়েছিল।

খাদ্যের সামর্থ্য থেকে শুরু করে নারীর অধিকারের প্রতি সম্মান, সমীক্ষাটিতে আনুমানিক ৩ কোটি ৬০ লক্ষ আফগান জনসংখ্যার অন্ধকার চিত্রটাই ফুটে উঠেছে এবং তাদের ভবিষ্যত সম্পর্কে আশা নেই বললেই চলে।

মহিলা উত্তরদাতারা, বিশেষ করে, তাদের পরিস্থিতিকে ভয়াবহ হিসাবে গণ্য করেছেন।

যদিও চারজনের মধ্যে তিনজন আফগান তাদের পরিবারের জন্য খাবার জোগাড় করতে পারে না, জরিপ অনুসারে, নারী-পুরুষ ব্যবধান আরও বেড়ে গেছেযেখানে ৬৯ শতাংশ পুরুষ খাদ্য কেনার জন্য লড়াই করছে , নারীর ক্ষেত্রে সে সংখ্যা ৮২ শতাংশ।

২০২১ সালের আগস্টে তালিবান আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ আবার নেওয়ার পর থেকে, দেশটিতে দারিদ্র্যের হার আরও খারাপ হয়েছে এবং আফগানরা বলেছে যে নারীদের অধিকারের প্রতি সম্মান একেবারে নিম্ন পর্যায়ে নেমে গেছে।

জরিপে পাওয়া গেছে, "আফগানিস্তানে গ্যালাপ জরিপের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো, আফগানিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ পুরুষ অর্থাৎ ৬০ শতাংশ মনে করেন না যে নারীদের সম্মান এবং মর্যাদার সাথে আচরণ করা হয়,"।

লন্ডন-ভিত্তিক এনজিও গ্লোবাল উইটনেস-এর একজন আফগানিস্তান বিশেষজ্ঞ স্টিফেন কার্টার, ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেছেন, "মানুষ একেবারেই মরিয়া হয়ে আছে। তারা আক্ষরিক অর্থে অনাহারের মুখোমুখি।"

জীবন বাঁচাতে এবং কষ্ট কমানোর জন্য, জাতিসংঘ ২০২২ সালে আফগানিস্তানে ৪৪০ কোটি ডলারেরও বেশি মানবিক সহায়তার আহ্বান জানিয়েছে - এখন পর্যন্ত এটি সংস্থাটির তরফ থেকে একটি দেশের জন্য সর্বাধিক আর্থিক সহায়তার আবেদন ।

XS
SM
MD
LG