অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ১১টি অস্ত্র উদ্ধার–তিনজন আটক


হাতকড়া। (ছবি- অ্যাডোবি স্টক)
হাতকড়া। (ছবি- অ্যাডোবি স্টক)

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের একটি দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১১টি অস্ত্র উদ্ধার করেছে আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এ সময় তিনজনকে আটক করা হয়।

শনিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) রাতে সীতাকুণ্ডু উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নের জঙ্গল সলিমপুরে অভিযান পরিচালনাকালে আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতা মশিউর রহমানের মশিউর বাহিনীর সঙ্গে আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

উদ্ধার করা অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে- ১০টি দেশীয় আগ্নেয়াস্ত্র, একটি বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র, একটি ধারালো ছুরি এবং মোট ২২ রাউন্ড গুলি। এ ছাড়াও মিলিটারি গেজেট, মিলিটারি পোশাক, মিলিটারি বাইনোকুলার ও অবৈধ ধাতব মুদ্রা উদ্ধার করা হয়।

অভিযানে খুলনার অন্ধ জামাল (৪২), লালমনিরহাটের সিরাজ (৩৫) এবং বাঁশখালীর চশমা মিজানকে আটক করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একজন কর্মকর্তা জানান, উদ্ধার করা অস্ত্র এবং বিপুল পরিমাণ বিভিন্ন ফাইল ও কাগজপত্র যাছাই-বাছাই চলছে।

আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্রে জানা যায়, গত ২৭ ডিসেম্বর ভোরে জঙ্গল ছলিমপুর থেকে আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক হয় ২৭ মামলার আসামি, ছিন্নমূল সংগঠনের নেতা এবং চট্টগ্রামের অন্যতম শীর্ষ সন্ত্রাসী ও সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা মশিউর রহমান। এ সময় তার কাছে থেকে দুই রাউন্ড গুলি ভর্তি ম্যাগাজিনসহ একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ওয়ান শুটারগান, দুটি এলজি, একটি দোনলা বন্দুক ও ১৩ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তা আরও জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার রাতে আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জঙ্গল সলিমপুরে সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা করে তিনজনকে গ্রেপ্তার করে। পরে তাদের নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারের অভিযান চালানো শুরু করতেই মশিউরের ছেলে সন্ত্রাসী শিবলুর নেতৃত্বে একদল অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে এবং লাঠি সোটা ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর অতর্কিত আক্রমণ করে আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকাণ্ডে বাধা দিয়ে গ্রেপ্তার আসামিদের ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে সন্ত্রাসীরা আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়তে শুরু করে। এই পরিস্থিতিতে আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও পাল্টা গুলি ছোঁড়ে। সন্ত্রাসীরা গুলি করতে করতে দূর্গম পাহাড়ের দিকে পালিয়ে যায়। নিজেদের জীবন ও অস্ত্র ও গোলাবারুদ রক্ষার্থে র‌্যাবও বিভিন্ন অস্ত্র দিয়ে ১২৯ রাউন্ড গুলি করে। আইন–শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এলাকাটিকে ঘিরে রাখে পরবর্তীতে আরও অধিক ফোর্স নিয়ে সন্ত্রাসীদের আস্তানায় ব্যাপক তল্লাশি শুরু করে। এ সময় মশিউর বাহিনীর প্রধান (মশিউরের ছেলে) মহিরুল হাসান ওরফে শিবলীসহ একাধিক সন্ত্রাসী দূর্গম পাহাড়ের মধ্যে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

পরে সীতাকুণ্ড থানায় এ ব্যাপারে পৃথক তিনটি মামলা করা হয়েছে।

XS
SM
MD
LG