অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ক্ষতিপূরণ বিষয়ক জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের রায় প্রত্যাখ্যান করলো উগান্ডা


নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগে ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অফ জাস্টিস এর ভবনটি দেখা যাচ্ছে। ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ছবি-রয়টার্স
নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগে ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অফ জাস্টিস এর ভবনটি দেখা যাচ্ছে। ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯, ছবি-রয়টার্স

জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের একটি রায় প্রত্যাখ্যান করেছে উগান্ডা। ৯০ দশকের শেষ দিকে দ্বিতীয় কঙ্গো যুদ্ধের সময় ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অফ কঙ্গো (ডিআরসি)-র ইতুরি প্রদেশে উগান্ডার আক্রমণের ফলে সেখানকার জনগণ,সম্পদ ও সম্পত্তির যে ক্ষতি হয়েছে সেজন্য কঙ্গো ( ডিআরসি)-কে ৩২ কোটি ৫০ লাখ ডলার ক্ষতিপূরণ দেয়ার আদেশ দেয় আইসিজে। বিশ্লেষকেরা বলছেন উগান্ডা মধ্যস্থতায় রাজি হলে এই জরিমানা এড়াতে পারতো।

উগান্ডার পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রী ওকেলো হেনরি ওরিয়েম বলেছেন যে, এই রায়ে ইতুরিতে অন্যান্য দেশের সশস্ত্র বাহিনীর উপস্থিতি উপেক্ষা করে শুধুমাত্র উগান্ডাকে দায়ী করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, “এ বিষয়টিকে আমরা কূটনৈতিকভাবেও সমাধান করতে পারতাম যার জন্য কোনো অর্থ প্রদানের প্রয়োজন হতো না”

রায়ের ব্যাপারে ভয়েস অফ আমেরিকা কঙ্গো (ডিআরসি)-র তথ্যমন্ত্রীর সাথে কথা বলতে চাইলে তার কথা বলার সময় নেই বলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে।

রায়ে আইসিজে এই সেপ্টেম্বর থেকে ২০২৬ সাল পর্যন্ত প্রতি বছর ৬কোটি ৫০ লাখ ডলার প্রদানের আহ্বান জানায়। কয়েক দশক ধরে কঙ্গো (ডিআরসি) ক্ষতিপূরণের দাবি করে আসছে। ২০০২ সালে কঙ্গো ও উগান্ডার কর্মকর্তারা গাম্বিয়ায় মিলিত হয়ে কিছু বিষয়ে আলোচনার প্রচেষ্টা চালায়।

২০০৫ সালে তারা আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে প্রথম মামলা দায়ের করে। আদালত উগান্ডাকে ১১ বিলিয়ন ডলার প্রদানের নির্দেশ দেয়। উগান্ডা সে নির্দেশ প্রত্যাখ্যান করলে দেশগুলো আবার আলোচনা শুরু করে।

উগান্ডা বলেছে, এ বিষয়ে কঙ্গো (ডিআরসি)-র সাথে তারা গঠনমূলকভাবে জড়িত থাকবে।

XS
SM
MD
LG