অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রাশিয়া সফরের আগে ইউক্রেন সংকটের শান্তিপূর্ণ অবসানের আহ্বান জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী


পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। (ফাইল ছবি)

পশ্চিমারা ইউক্রেন সঙ্কটের গভীরতা নিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের যখন তীব্র সমালোচনা করছেন, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বুধবার পুতিনের সাথে দেখা করতে রাশিয়া যাচ্ছেন।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়েছে, পুতিন এবং খান জ্বালানি সহযোগিতাসহ দুই দেশের সম্পর্কের "সামগ্রিক বিন্যাস পর্যালোচনা করবেন"।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, "ইসলামোফোবিয়া এবং আফগানিস্তান পরিস্থিতিসহ প্রধান আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতেও দুই নেতা বিস্তৃত মত বিনিময় করবেন।"

রাশিয়ার সরকারী বার্তা সংস্থা টিএএসএস মঙ্গলবার ক্রেমলিনের মুখপাত্র দ্যমিত্রি পেসকভকে উদ্ধৃত করে সাংবাদিকদের বলেছে, খানের সাথে পুতিনের বৈঠক "বৃহস্পতিবার নির্ধারিত হয়েছে।"

ইউক্রেনের বিচ্ছিন্ন প্রজাতন্ত্র ডনেস্টস্ক এবং লুহানস্কের স্বাধীনতাকে পুতিন স্বীকৃতি দেওয়ার পর, খানই হবেন প্রথম বিদেশী নেতা, যিনি মস্কো সফর করবেন।

মঙ্গলবার রাশিয়ার রাষ্ট্র-নিয়ন্ত্রিত চ্যানেল আরটির সাথে কথা বলার সময় খান বলেন, "এই [ইউক্রেন সংকট] নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন নই। রাশিয়ার সাথে আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক রয়েছে এবং আমরা মূলত এটিকে আরও শক্তিশালী করতে চাই।"

পাকিস্তানি নেতা আরও বলেন, "এখন, আমরা কোনো ব্লকের অংশ হতে চাই না। আমরা সব দেশের সঙ্গেই বাণিজ্যিক সম্পর্ক রাখতে চাই।"

খান বলেন, তিনি আশা করেন ইউক্রেন সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধান হবে।

পাকিস্তান এবং রাশিয়া একসময় তিক্ত প্রতিপক্ষ ছিল, কারণ স্নায়ুযুদ্ধের সময় ইসলামাবাদ যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পৃক্ত ছিল।

অন্যদিকে, ইউক্রেনীয় গমের প্রধান আমদানিকারক দেশ পাকিস্তান, সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ইউক্রেনের সাথেও ঘনিষ্ঠ অর্থনৈতিক ও সামরিক সম্পর্ক গড়ে তুলেছে।

ইউক্রেনের প্রথম উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী এমিন জেপার সোমবার কিয়েভে পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূতের সাথে দেখা করার পর এক টুইট বার্তায় বলেছেন, দুই পক্ষ দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক সহযোগিতা বাড়ানোর উপায় নিয়ে আলোচনা করেছে।

জেপার লিখেছেন, "ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতাকে সমর্থন করার জন্য আমরা পাকিস্তানের প্রতি কৃতজ্ঞ।"

XS
SM
MD
LG