অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে সাগরে যাত্রীবোঝাই জাহাজে আগুন লাগার ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন


বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলা থেকে কক্সবাজার জেলার সেন্টমার্টিন যাওয়ার পথে সাগরে যাত্রীবোঝাই প্রমোদতরী “এমভি বে ওয়ান”–এ আগুন লাগার ঘটনার তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে নৌ বাণিজ্য দপ্তর।

নৌ বাণিজ্য দপ্তরের প্রিন্সিপাল অফিসার ও রেজিস্ট্রার অব বাংলাদেশ শিপসের ক্যাপ্টেন গিয়াসউদ্দিন আহমেদ শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চত করেন।

তিনি বলেন, “নটিক্যাল সার্ভেয়ার ক্যাপ্টেন শেখ মো. জালাল উদ্দিন গাজীকে প্রধান করে শনিবার এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।”

তদন্ত কমিটির বাকি দুই সদস্য হলেন ইঞ্জিনিয়ার ও শিপ সার্ভেয়ার রফিকুল আলম ও নৌ পরিবহন অধিদপ্তরের ফিল্ড ইউনিটের কো-অর্ডিনেটর মোহাম্মদ হোসাইন।

গিয়াসউদ্দিন আহমেদ বলেন, “সার্ভে শেষে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। দুর্ঘটনার কারণ, দুর্ঘটনার সময়, জাহাজ কর্তৃপক্ষের দায়-দায়িত্ব ও ক্ষতিপূরণ নির্ধারণ করে সুপারিশ করা হবে।”

তিনি আরও বলেন, “এমভি বে ওয়ান সিঙ্গাপুর থেকে চার্টার নেওয়া। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে ফিটনেস সার্টিফিকেট দেওয়া হয় না। চার্টার দেশই এটি দিয়ে থাকে। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ডিজি শিপিং কর্তৃপক্ষ কেবল অনুমোদন দিয়ে থাকে।”

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার রাতে যাত্রী নিয়ে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশে ছেড়ে যায় বিলাসবহুল জাহাজ এমভি বে ওয়ান ক্রুজ। প্রায় দুই ঘন্টার মাথায় সাগরের মাঝে গিয়ে ১২টার দিকে জাহাজটির ইঞ্জিন রুম থেকে ধোঁয়া বের হতে থাকলে পুরো জাহাজে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

জাহাজের ক্রুরা জানায়, ইঞ্জিনে আগুন লাগার কারণে এ ধোঁয়া বের হচ্ছে। পরে আধ ঘণ্টার মাথায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। পরদিন শুক্রবার দুপুরে বন্দরের কান্ডারী-১২ এর সাহায্যে যাত্রীসহ জাহাজটি পতেঙ্গায় ফিরিয়ে আনা হয়।

XS
SM
MD
LG