অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

‘গ্রজনি’র মতো পরিণামের আশংকায় এখন ইউক্রেনের মানুষ


এক ব্যক্তি চেরনিহিভ শহরে গতকালের গোলাগুলিতে ক্ষতিগ্রস্ত একটি আবাসিক ভবনের সামনে দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন।৪ মার্চ ২০২২।

লারিসা তিনদিন আগে তার ৯ বছর বয়সী মেয়েকে সাথে নিয়ে খারকিভ ত্যাগ করেন। তার চোখেমুখে ভীতির ছাপ; তার অস্থিরতা দেখে মনে হয় যে তিনি প্রবল মানসিক আঘাত পেয়েছেন। এসবের মধ্যেই তিনি তার স্বামীর স্মৃতিতে কাতর হয়ে রয়েছেন। তার স্বামী পালিয়ে না গিয়ে যুদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেন।

তার নামের অর্থ ‘দূর্গ’। তবে ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভের এক সুউচ্চ ভবনে তার অ্যাপার্টমেন্টটিকে মোটেও দূর্গ মনে হয়নি। রাশিয়ার আক্রমণের পর থেকে ঐ শহরটি সবচেয়ে ভয়ানক যুদ্ধের কিছুটার সাক্ষী হয়েছে।

ভবনটির কাছেই গোলাবর্ষণ এবং রকেট ও ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে ভবনটি কেঁপে উঠে এবং জানালাগুলো ভেঙে যায়।

৩৪ বছর বয়সী এই শিক্ষক বলেন, “কোথায় আঘাত করা হল, রাশিয়া সেটির তোয়াক্কা করে না। আমরা বেজমেন্টে আশ্রয় নিয়েছিলাম।” কথাগুলো বলার সময়ে তিনি স্লোভাকিয়ায় প্রবেশের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। সেখান থেকে তিনি লিথুয়েনিয়ায় অবস্থিত তার এক দাদীর কাছে যাবেন।

তার গল্পটি অনেকের মতোই একইরকম। যাদের সকলেই যুদ্ধের ভয়াবহতা থেকে বাঁচতে, হয় এখনও যুদ্ধ শুরু না হওয়া পশ্চিম ইউক্রেনের তুলনামূলক নিরাপদ স্থানে গিয়েছেন অথবা বিদেশে অনির্দিষ্টকালের জন্য নির্বাসন নিয়েছেন।

কিয়েভ, খারকিভ এবং অ্যাজভ সাগরের উপকূলে রাশিয়ার বাহিনীর ঘিরে রাখা দক্ষিণের মারিউপোল বন্দরে এখনও গোলাবর্ষণের মধ্যে থাকা মানুষজন বলছে যে, গোলাবর্ষণের গতি ও তীব্রতা গত একদিন কিংবা সে রকম সময়ের মধ্যে আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। এর ফলে আবাসিক এলাকাগুলোর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল ম্যাঁক্রো বৃহস্পতিবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে এক দীর্ঘ আলাপের পর বলেন যে, “সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতিটি এখনও আসেনি”। ম্যাঁক্রোর এমন ভয়াবহ ভবিষ্যদ্বাণীতে ইহর এর শরীর ভয়ে শীতল হয়ে যায়। তিনি অবরুদ্ধ মারিউপোল এ তার বাড়ি থেকে ভিওএ’র সাথে টেক্সট বার্তা আদান-প্রদান করেছিলেন ।

তিনি বলেন, “গোলাবর্ষণ কখনও বন্ধ হয় না। আমাদের খাবার কমে গিয়েছে এবং বাসার বাইরে রসদ খুঁজতে যাওয়া খুবই ঝুঁকিপূর্ণ।”

মারিউপোলের মানুষের সাথে যোগাযোগ করা দুষ্কর এবং বিক্ষিপ্ত। সেখানে ইন্টারনেট ও ফোন পরিষেবা বারবার বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে। এই বন্দরনগরীর অনেকের মুখেই এখন “গ্রজনি” নামটি উচ্চারিত হচ্ছে। চেচনিয়ার রাজধানী গ্রজনি ১৯৯৯ সালের শেষদিক থেকে ২০০০ সালের শুরুর দিকের মধ্যে প্রায় ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়ে গিয়েছিল। সে সময়ে পুতিন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন এবং প্রেসিডেন্ট হিসেবে বরিস ইয়েল্তসিনের উত্তরসূরি হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।

XS
SM
MD
LG