অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

দক্ষিণ কোরিয়ায় নির্বাচনের কয়েক দিন আগে উত্তর কোরিয়ার আরেকটি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ


দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলের একটি রেলস্টেশনে উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার ফাইল ফুটেজ সহ টেলিভিশনে সম্প্রচারিত সংবাদ দেখছে লোকজন। ৫ মার্চ ২০২২।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র চার দিন আগে উত্তর কোরিয়া দেশটির পূর্ব উপকূলের সমুদ্রে একটি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে। শনিবার (৫ মার্চ) জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী। এটিকে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র বলে ধারণা করা হচ্ছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়া পিয়ংইয়ংয়ের সুনান এলাকা থেকে ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপণ করেছে। এটি সেই একই স্থান, যেখান থেকে উত্তর কোরিয়া শনিবার একটি পরীক্ষা চালিয়েছিল এবং যেটি তারা আসন্ন একটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি বলে বর্ণনা করে।

জাপানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক জানিয়েছে যে, ক্ষেপণাস্ত্রটি প্রায় ৩০০ কিলোমিটার পাড়ি দেয় এবং সর্বোচ্চ ৫৫০ কিলোমিটার উচ্চতায় পৌঁছায়। জাপানের কোস্টগার্ড জানিয়েছে, ক্ষেপণাস্ত্রটি জাপানের একচেটিয়া অর্থনৈতিক অঞ্চলের বাইরে সমুদ্রে গিয়ে পড়ে।

চলতি বছর এ পর্যন্ত উত্তর কোরিয়া নয়বারে অন্তত ১৩টি পৃথক ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে।

বেশির ভাগ উৎক্ষেপণেই স্বল্প পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ছিল। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে, উত্তর কোরিয়া বারবার ইঙ্গিত দিয়েছে যে, তারা শিগগিরই একটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করবে। এই পদক্ষেপ কোরীয় উপদ্বীপে উল্লেখযোগ্যভাবে উত্তেজনা বাড়াবে।

শান্তিপূর্ণ উৎক্ষেপণের দাবি উত্তর কোরিয়ার

উত্তর কোরিয়া জোর দিয়ে বলেছে, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণটি হবে শান্তিপূর্ণ। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া এগুলোকে ছদ্মবেশী দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা হিসেবে দেখছে।

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ উত্তর কোরিয়ার যেকোনো দূরত্বের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাসহ যেকোনো ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কার্যকলাপের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

উত্তর কোরিয়ার সর্বশেষ পরীক্ষাটি চালানো হয় দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র চার দিন আগে। যদিও উত্তর কোরিয়া প্রচারের কেন্দ্রবিন্দু ছিল না, প্রার্থীরা ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ বা ভোটের ফলাফলকে প্রভাবিত করার জন্য অন্য উস্কানিমূলক আচরণের বিরুদ্ধে সতর্ক করেছেন।

প্রার্থীদের মন্তব্য

একটি ফেসবুক পোস্টে, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট প্রার্থী লি জায়ে-মিয়ং উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের নিন্দা করে বলেছেন, তার প্রশাসন, “উত্তেজনা সৃষ্টির কার্যকলাপ কখনোই সহ্য করবে না”।

প্রাক্তন প্রাদেশিক গভর্নর, লির প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রাক্তন প্রসিকিউটর রক্ষণশীল প্রার্থী ইউন সিওক-ইউল।

উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পেছনে অন্য সম্ভাব্য কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে, নেতা কিম জং উনের জন্য অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক সমর্থন বৃদ্ধি, নতুন অস্ত্রের কর্মক্ষমতা নিশ্চিত করা এবং প্রতিরোধ ক্ষমতার প্রদর্শন।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র চার দিন আগে উত্তর কোরিয়া দেশটির পূর্ব উপকূলের সমুদ্রে একটি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে। শনিবার (৫ মার্চ) জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী। এটিকে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র বলে ধারণা করা হচ্ছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়া পিয়ংইয়ংয়ের সুনান এলাকা থেকে ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপণ করেছে। এটি সেই একই স্থান, যেখান থেকে উত্তর কোরিয়া শনিবার একটি পরীক্ষা চালিয়েছিল এবং যেটি তারা আসন্ন একটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি বলে বর্ণনা করে।

জাপানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক জানিয়েছে যে, ক্ষেপণাস্ত্রটি প্রায় ৩০০ কিলোমিটার পাড়ি দেয় এবং সর্বোচ্চ ৫৫০ কিলোমিটার উচ্চতায় পৌঁছায়। জাপানের কোস্টগার্ড জানিয়েছে, ক্ষেপণাস্ত্রটি জাপানের একচেটিয়া অর্থনৈতিক অঞ্চলের বাইরে সমুদ্রে গিয়ে পড়ে।

চলতি বছর এ পর্যন্ত উত্তর কোরিয়া নয়বারে অন্তত ১৩টি পৃথক ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে।

বেশির ভাগ উৎক্ষেপণেই স্বল্প পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ছিল। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে, উত্তর কোরিয়া বারবার ইঙ্গিত দিয়েছে যে, তারা শিগগিরই একটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করবে। এই পদক্ষেপ কোরীয় উপদ্বীপে উল্লেখযোগ্যভাবে উত্তেজনা বাড়াবে।

শান্তিপূর্ণ উৎক্ষেপণের দাবি উত্তর কোরিয়ার

উত্তর কোরিয়া জোর দিয়ে বলেছে, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণটি হবে শান্তিপূর্ণ। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া এগুলোকে ছদ্মবেশী দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা হিসেবে দেখছে।

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ উত্তর কোরিয়ার যেকোনো দূরত্বের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাসহ যেকোনো ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কার্যকলাপের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

উত্তর কোরিয়ার সর্বশেষ পরীক্ষাটি চালানো হয় দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র চার দিন আগে। যদিও উত্তর কোরিয়া প্রচারের কেন্দ্রবিন্দু ছিল না, প্রার্থীরা ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ বা ভোটের ফলাফলকে প্রভাবিত করার জন্য অন্য উস্কানিমূলক আচরণের বিরুদ্ধে সতর্ক করেছেন।

প্রার্থীদের মন্তব্য

একটি ফেসবুক পোস্টে, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট প্রার্থী লি জায়ে-মিয়ং উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের নিন্দা করে বলেছেন, তার প্রশাসন, “উত্তেজনা সৃষ্টির কার্যকলাপ কখনোই সহ্য করবে না”।

প্রাক্তন প্রাদেশিক গভর্নর, লির প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রাক্তন প্রসিকিউটর রক্ষণশীল প্রার্থী ইউন সিওক-ইউল।

উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার পেছনে অন্য সম্ভাব্য কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে, নেতা কিম জং উনের জন্য অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক সমর্থন বৃদ্ধি, নতুন অস্ত্রের কর্মক্ষমতা নিশ্চিত করা এবং প্রতিরোধ ক্ষমতার প্রদর্শন।

XS
SM
MD
LG