অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পাকিস্তানে বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা এখন ৬২; হামলাকারিদের পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে  


পাকিস্তানে বোমা হামলায় নিহতদের জানাজায় অংশ নিচ্ছেন বিশাল এক জনতা, ৫ই মার্চ, ২০ ২২/এপি

উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় পাকিস্তানে একটি শিয়া মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলায় মৃতের সংখ্যা রাতে ৬২তে পৌঁছায়। শনিবার পুলিশ জানায় দুর্ঘটনাস্থলে পাওয়া বিচ্ছিন্ন দুটি পা দেখে তারা বোমা হামলাকারীর পরিচয় শনাক্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

পুলিশ এছাড়াও শুক্রবারের হামলার সিসিটিভি প্রকাশ করেছে, যেখানে রাজধানী ইসলামাবাদ থেকে ১৯০ কিলোমিটার (১২০ মাইল) দূরে পেশাওয়ারের কোচা রিসালদার এলাকার একটি মসজিদে প্রথাগত সালোয়ার কামিজ পরিহিত এক ব্যক্তিকে মসজিদে প্রবেশ করার সময় দুজন পুলিশকে গুলি করতে দেখা যায়।

তারপর সে জুমার নামাজ শুরু হওয়ার কয়েক মুহূর্ত আগে মসজিদের ঐ ভিড়ে বল বেয়ারিং সংযুক্ত আত্মঘাতী পোশাকটিতে বিস্ফোরণ ঘটালে ভবনটি ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় । ইসলামিক স্টেট গ্ৰুপটি এই হামলার দায় স্বীকার করেছে।

পেশাওয়ার পুলিশ প্রধান মুহাম্মদ ইজাজ খান সংবাদ সংস্থা এএফপিকে জানান, দুটি কাটা পা সহ ৭টি দেহ শনাক্ত করা যায় নি। বিচ্ছিন্ন পা দুটি বোমা হামলাকারীর বলে অনুমান করা হচ্ছে।
তিনি জানান, ১০ বছরের কম বয়সী ৭টি শিশুসহ মৃতের সংখ্যা এখন ৬২তে দাঁড়িয়েছে।

২০১৮ সালের জুলাইয়ের পর এটি ছিল সবচাইতে মারণাত্মক হামলা। তখন নির্বাচনের একটি সমাবেশে বিস্ফোরণে ১৪৯ জন প্রাণ হারিয়েছিলেন আর সেই হামলার দায়ও স্বীকার করেছিল ইসলামী স্টেট গ্ৰুপের স্থানীয় একটি শাখা।

আফগানিস্তানের সংঘাত প্রবন সীমান্ত থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত পেশাওয়ার ছিল ২০১০ সালের গোড়াতে জঙ্গিদের ঘন ঘন আক্রমণের লক্ষ্যস্থল। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সেখানে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

সুন্নি সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ পাকিস্তান সাম্প্রতিক সময়ে পাকিস্তানে তালিবানের অভ্যন্তরীণ শাখা, তেহরিক ই তালিবান পাকিস্তান সংক্ষেপে (TTP)-এর উত্থানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে লিপ্ত রয়েছে।

গত বছর এক মাসের একটি চুক্তি ব্যর্থ হয়েছিল এবং আশংকা রয়েছে যে টিটিপি যারা অতীতে শিয়া মুসলমানদের লক্ষ্যবস্তু করতো, আফগান তালিবানের সাফল্যে তারা উজ্জীবিত বোধ করতে পারে।

পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রাশিদ আহমেদ একটি ভিডিও বার্তায় বলেছেন, “পুলিশ আগামী দু একদিনের মধ্যেই তাদেরকে ধরতে সমর্থ হবে। ইতিমধ্যেই স্থানীয় শিয়া সম্প্রদায়ের লোকজন নিহতদের দেহ কবর দেয়ার জন্য তাদের গ্রামের বাড়িতে পাঠাচ্ছেন ।

পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে টেস্ট ক্রিকেট খেলার প্রথম দিনে এই বিস্ফোরণটি ঘটে। নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগের কারণে প্রায় ২৫ বছর ধরে পাকিস্তানে কোনো দল সফর করেনি।

[এএফপি]

XS
SM
MD
LG