অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৮ জন নিহত


বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৮ জন নিহত/ইউএনবি

বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৮ জন নিহত ও প্রায় ৪০ জন আহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে হবিগঞ্জে চারজন, পটুয়াখালীতে তিনজন, যশোরে দুজন, মাগুরায় দুজন, নেত্রকোনায় দুজন, ঢাকা জেলার ধামরাইয়ে তিনজন, নাটোরে একজন এবং খুলনায় একজন নিহত হন।

হবিগঞ্জে বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চারজন নিহত, আহত ৩০

হবিগঞ্জ জেলার শায়েস্তাগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস ও পাথরবোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চারজন নিহত এবং ৩০ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার (১১ মার্চ) রাত সাড়ে ৯টায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার উলুকান্দি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

শায়েস্তাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অজয় চন্দ্র দেব বলেন, “ঢাকা থেকে সিলেটগামী একটি যাত্রীবাহী বাস ও সিলেট থেকে আসা পাথরবোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় সিলেটগামী আরেকটি বাস পেছন দিক থেকে এসে দুর্ঘটনা কবলিত বাসে ধাক্কা দেয়। এতে দুজন ঘটনাস্থলে এবং হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে আরও দুজন মারা যান।”

নিহতদের পরিচয় এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জানা যায়নি।

এদিকে এ দুর্ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় জনগণ সড়ক অবরোধ করলে অজয় চন্দ্র দেব ও উবাহাটা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান রজব আলীসহ সংশ্লিষ্টরা পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন এবং সড়কে যান চলাচল শুরু হয়।

পটুয়াখালীতে মোটরসাইকেল ও পিকআপের ত্রিমুখী সংঘর্ষে তিনজন নিহত

পটুয়াখালী জেলার দুমকীতে দুই মোটরসাইকেল ও পিকআপ ভ্যানের ত্রিমুখী মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। শনিবার (১২ মার্চ) সকাল ১০টায় দুমকী বোর্ড বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-বায়জিদ (১৫), হিরা হাওলাদার (২০) ও মো. ইউসুফ (৩২)।

দুমকী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুস সালাম বলেন, “পটুয়াখালী থেকে একটি মোটরসাইকেল ও একটি গ্যাস বোঝাই পিকআপ ভ্যান বাউফলের দিকে যাচ্ছিল। অপর দিকে বাউফল থেকে একটি মোটরসাইকেল চরগরদী এলাকা অতিক্রম কালে দুই মোটরসাইকেল ও পিকআপ ভ্যানের ত্রিমুখী মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে একজন ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। এ ছাড়া বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে দুজনের মৃত্যু হয়েছে।”

তিনি আরও বলেন, “নিহত ব্যক্তির একজনের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। অন্য দুজনের লাশ বরিশাল থেকে হস্তান্তর করা হবে। এ ঘটনায় পিকআপ ভ্যানের চালক ও হেলপারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।”

যশোরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুজন নিহত

যশোর জেলায় মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে দুই যুবক নিহত ও একজন আহত হয়েছেন। শুক্রবার (১১ মার্চ) রাত পৌনে ১১টার দিকে মণিরামপুর উপজেলার খেদাপাড়া-তেতুলিয়া সড়কের বসন্তপুর গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-মণিরামপুর উপজেলার কিসমত চাকলা গ্রামের এরশাদ আলীর ছেলে শাওন হোসেন (২১) ও একই গ্রামের মৃত কাসেম আলীর ছেলে ইমরান হোসেন (২২)। তারা দুজনই এইচএসসি পাস করেছে।

আহত আসিফ হোসেন (২১) মণিরামপুর উপজেলার ডুমুরখালি গ্রামের আব্দুল আলিমের ছেলে।

খেদাপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) ছদরুল আলম বলেন, “শুক্রবার রাতে বাড়ি ফেরার সময় বসন্তপুরে গ্রামে পৌঁছালে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের একটি মেহগনি গাছের সঙ্গে ধাক্কা লাগে এবং এতে ঘটনাস্থলে শাওন ও ইমরান নিহত হন। আর আসিফ গুরুতর আহত হন। তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।”

মাগুরায় মোটরসাইকেল ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুজন নিহত

মাগুরা জেলার মাগুরা-মহাম্মদপুর সড়কে মোটরসাইকেল ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুজন নিহত হয়েছেন। শনিবার (১২ মার্চ) দুপুরে বেথুলিয়া নামক স্থানে এ দুর্ঘটনায় আরও দুজন আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন-নড়াইলের লোহাগাড়া উপজেলার নবাব আলীর ছেলে আল আমিন (৩৫) ও মাগুরা সদরের নিশ্চিন্তপুর মুছাপুরের বায়েজিদ (২৫)। আহতরা হলেন-সাদিয়া (২৫) ও আরিফ (৩০)।

মহম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইকরাম হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মহাম্মদপুর থেকে ট্রাকটি মাগুরা যাওয়ার পথে এবং মাগুরা থেকে মোটরসাইকেল মহাম্মদপুর আসার পথে বেথুলিয়া নামক স্থানে মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ফলে ট্রাকটি খাদে পড়ে যায়। স্থানীয় জনগণ তাদেরকে সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে মহম্মদপুর থানায় মামলা হয়েছে।

নেত্রকোনায় বিকল ট্রাকের সঙ্গে পিকআপের ধাক্কা লেগে দুজন নিহত

নেত্রকোনা জেলায় সিমেন্ট বোঝাই বিকল ট্রাকের সঙ্গে পিকআপের ধাক্কা লেগে দুজন নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় একজন গুরুতর আহত হন। শনিবার (১২ মার্চ) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে নেত্রকোনা-ময়মনসিংহ আঞ্চলিক সড়কের সাকুয়া বাজারে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত তরিকুল (৩৫) কলমাকান্দা উপজেলার বড়কাপন ইউনিয়নের শুনই আমবাড়ী গ্রামের আজিজ বেপারীর ছেলে। নিহত অপর জনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। আহত পিকআপচালক তারিককে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নেত্রকোনা সদরের চল্লিশা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাহবুবুল মজিদ বলেন, “নেত্রকোনা-ময়ময়নসিংহ আঞ্চলিক সড়কের সাকুয়া নামক স্থানে সিমেন্টবাহী একটি ট্রাক বিকল হয়ে যাওয়ায় তা মেরামত করছিল। শনিবার সকালে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা নেত্রকোনাগামী একটি পিকআপ নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ওই ট্রাকের পেছনে ধাক্কা দেয়। এতে পিকআপে থাকা দুজন ঘটনাস্থলেই নিহত ও চালক গুরুতর আহত হন।”

তিনি আরও জানান, তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা গিয়ে নিহতদেরকে গাড়ির ভেতর থেকে উদ্ধার করে।

এ ব্যাপারে নেত্রকোনা মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মামুন জানান, নিহতদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। আরেকজনের পরিচয় উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। গুরুতর আহত চালক তারিককে নেত্রকোনা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ধামরাইয়ে প্রাইভেটকার চাপায় তিনজনের মৃত্যু

ঢাকা জেলার ধামরাইয়ে প্রাইভেটকার-সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে মা ও দুই ছেলেসহ একই পরিবারের তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় সিএনজি চালকসহ আরও তিনজন আহত হয়েছেন।

শুক্রবার (১১ মার্চ) রাত সাড়ে ৮টার দিকে ধামরাই উপজেলার ঢুলিভিটা এলাকায় ঢুলিভিটা-ধামরাই বাজার সড়কের মমতাজ মেডিকেলের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের ভাড়ারিয়া এলাকার নাসির উদ্দিন খানের স্ত্রী পিয়ারা বেগম (৪৫) ও দুই ছেলে নাসিব খান (২০), ছোটন খান (১৮)।

আহত তিনজনের মধ্যে দুজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন—সিএনজিচালক ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের ভাড়ারিয়া গ্রামের আবুল দেওয়ানের ছেলে শাহ আলম (৩২) এবং একই এলাকার মামুনের ছেলে তুষার (২৪)। আরেকজনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে তারা সবাই আশঙ্কামুক্ত।

ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওর্য়াডের ইউপি সদস্য শামীমুজ্জামান শামীম জানান, মা ও দুই ছেলে ঢাকায় বেড়ানো শেষে ঢুলিভিটা থেকে সিএনজিযোগে বাড়ি ফিরছিলেন। মমতাজ মেডিকেলের কাছে আসলে একটি প্রাইভেটকার তাদেরকে ধাক্কা দেয়। পরে আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে মমতাজ মেডিকেলে নেওয়া হলে সেখানে মা ও উপজলো স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পথে দুই ছেলে মারা যায়। গুরুতর আহত সিএনজিচালক ও অপর দুই আহতকে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. সায়লা শায়মীন জেসি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিকুর রহমান বলেন, “দুই ছেলেসহ মায়ের মৃত্যুর ঘটনায় আমরা সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করেছি। নিহতদের পরিবারের পক্ষে এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।”

নাটোরে ট্রাকের সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কা লেগে শিশু নিহত, বাবা-মা আহত

নাটোরে ট্রাকের সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কা লেগে মোটরসাইকেলের আরোহী শিশু নিহত হয়েছে। এই সময় নিহত শিশুর বাবা-মা আহত হন। শনিবার (১২ মার্চ) সকালে সদর উপজেলার কালিকাপুর এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত শিশু ফাহিমা ব্যবসায়ী ফারুক হোসেনের মেয়ে ও স্থানীয় একটি স্কুলের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী। আহতরা হলেন- ফারুক হোসেন ও তার স্ত্রী দিলারা।

বনপাড়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কেরামত আলী বলেন, “সকালে ফারুক হোসেন তার স্ত্রী দিলারা ও মেয়ে ফাহিমাকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে বড়াইগ্রাম উপজেলার বনপাড়া থেকে নাটোর সদরের হয়বতপুরে তার বাড়ি যাচ্ছিলেন। পথে কালিকাপুর এলাকায় ট্রাকের সঙ্গে ধাক্কা লেগে তিনজনই রাস্তায় ছিটকে পড়েন। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক শিশু ফাহিমাকে মৃত ঘোষণা করেন।”

খুলনায় মোটরসাইকেল-ইজিবাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষে একজন নিহত

খুলনায় মোটরসাইকেল ও ইজিবাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষে একজন নিহত ও চারজন আহত হয়েছেন। শুক্রবার (১১ মার্চ) রাতে ডুমুরিয়া উপজেলার ফুলতলার জামিরায় বাজার এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত অনুজ কুমার মন্ডল (৩২) উপজেলার রামকৃষ্ণপুরের সুনিল মন্ডলের ছেলে।

আহতরা হলেন-একই এলাকার খোকন চন্দ্রের ছেলে মোটরসাইকেল আরোহী অনুপ চন্দ্র (৩২), ডুমুরিয়ার সিরাজুল ইসলামের ছেলে ইজিবাইক চালক আব্দুল্লাহ (২৫), ফুলতলার রফিকুল মোল্যার ছেলে ইজিবাইকের যাত্রী কাদির মোল্যা (১৭) ও বিল্লাল মোল্যার ছেলে নাঈম মোল্যা (১৭)।

ফুলতলা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মুজাহিদুল ইসলাম জানান, রাত সাড়ে ১১টার দিকে অনুজ কুমার মন্ডল ও অনুপ চন্দ্র মোটরসাইকেল যোগে ভবদা থেকে জামিরা বাজার যাচ্ছিলেন। জামিরার শেখ বাড়ির সামনে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা ইজিবাইকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় মোটরসাইকেলের চালক অনুজ কুমার মন্ডল ঘটনাস্থলে নিহত হন। এতে মোটরসাকেলের অপর আরোহী ও ইজিবাইকের চালক ও যাত্রীসহ চারজন গুরুতর আহত হন।

পরে তাদের ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে প্রাথমি চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় বলে জানান তিনি।

XS
SM
MD
LG