অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জাপানের উত্তরাঞ্চলে শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে


ভূমিকম্পের সময় তোলা ছবিতে দেখা যাচ্ছে জাপানের মিয়াগি জেলার একটি দোকানের মালপত্র পড়ে যাওয়ার দৃশ্য। (কিওদো/ রয়টার্স)

বুধবার রাতে জাপানের ফুকুশিমা উপকূলে আঘাত হানা ৭.৪ মাত্রার ভূমিকম্পে ২জন নিহত ও প্রায় ১০০ জন আহত হয়েছে।ভূমিকম্পের ফলে টোকিওতে প্রায় বিশ লাখেরও বেশি মানুষ বিদ্যুৎ বিহীন ছিল।

জাপান আবহাওয়া সংস্থা জানায়, স্থানীয় সময় রাত ১১টা ৩৬মিনিটে ভূমিকম্পটি ৬০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে আঘাত হানে।

সংস্থাটি মিয়াগি ও ফুকুশিমা অঞ্চলের কিছু অংশে সুনামি সংক্রান্ত সতর্কতা জারি করেছে। বৃহস্পতিবার সকালে তা তুলে নেয়া হয়। টোকিও থেকে প্রায় ৩৯০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে ইশিনোমাকিতে প্রায় ৩০ সেন্টিমিটার উঁচু ঢেউ লিপিবদ্ধ করা হয়।

একই এলাকায় ২০১১ সালের মার্চে ৯ মাত্রার ভূমিকম্প হয় এবং পরবর্তীতে সুনামিতে এলাকাটি বিধ্বস্ত হয়। সুনামিতে হাজার হাজার মানুষ নিহত হয়েছিল এবং ফুকুশিমা দাইচি পারমাণবিক কেন্দ্র বিধ্বস্ত হয়ে পারমাণবিক দুর্ঘটনা ঘটে । উচ্চতর বিকিরণের কারণে ওই অঞ্চলের কিছু অংশ বসবাসের অযোগ্য থেকে যায়।

ফুকুশিমা পারমাণবিক চুল্লির অপারেটর টোকিও ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানি হোল্ডিংস জানিয়েছে, কর্মীরা কোনো অস্বাভাবিকতা খুঁজে পায়নি।

ফুকুশিমা শহরে ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গিয়েছে। সেখানে একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের দেয়াল ধ্বসে গিয়েছে এবং মূল ট্রেন স্টেশনের কাছে ভাঙা কাঁচের টুকরো মাটিতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল।রাস্তাগুলোতে ফাটল দেখা দিয়েছে এবং ভূগর্ভস্থ নলগুলো থেকে পানি বের হচ্ছে।

কর্তৃপক্ষ ক্ষয়ক্ষতির পরিমাপ করার চেষ্টা করছে। মুখ্য মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিরোকাজু মাতসুনো সম্ভাব্য আফটার শকের জন্য সতর্ক থাকতে বলেছেন এবং লোকজনকে সতর্কতা অবলম্বন করার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ”উদ্ধার অভিযানে আমরা সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালাচ্ছি এবং মানুষের জীবনকে প্রাধান্য দিচ্ছি।“

এ প্রতিবেদনের কিছু তথ্য এপি থেকে নেয়া হয়েছে।

XS
SM
MD
LG