অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইউক্রেন ও ব্রেক্সিট সম্পর্কে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যে বিরোধীদের বিস্ময়


ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ব্রিটেনের ব্ল্যাকপুলে কনজারভেটিভ পার্টির বসন্তকালীন সম্মেলনে বক্তৃতা রাখছেন। ১৯শে মার্চ, ২০২২।

লন্ডন — ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন শনিবার বলেছেন, ব্রেক্সিট দেখিয়েছে যে রাশিয়ার আক্রমণের বিরুদ্ধে ইউক্রেনীয়দের লড়াই করার মতোই ব্রিটিশ জনগণও স্বাধীনতাকে ভালবাসে। তবে তাঁর এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিরোধী আইন প্রণেতা এবং ভাষ্যকাররা একে রুচিহীন মন্তব্য বলে অভিহিত করেন।

ব্রিটেনে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূতের উপস্থিতিতে, কনজারভেটিভ পার্টির এক সম্মেলনে জনসন বলেন, ইউক্রেনীয়দের মতোই ব্রিটিশ জনগণের প্রবৃত্তি ছিল প্রতিবার স্বাধীনতাকে বেছে নেওয়া।

জনসনের মন্তব্য সম্পর্কে বিরোধী লেবার বিধায়ক ক্রিস ব্রায়ান্ট বলেছেন, “এটি একটি সম্পূর্ণ বিভ্রান্তিকর যুক্তি। ইউক্রেন ইইউতে যোগ দিতে চায়। (ইইউ সদস্য রাষ্ট্র) ফ্রান্স ও স্পেনের জনগণও স্বাধীন”।

জনসন বলেন, ব্রিটেন ইউক্রেনের পাশে দাঁড়িয়েছে এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন "ভয়ে" ছিলেন যে একটি গণতান্ত্রিক এবং মুক্ত দেশ ইউক্রেন রাশিয়ার উপর তাঁর শাসনকে খর্ব করবে।

জনসন বলেন, “এর পরও পুতিনের সাথে সম্পর্ককে আবারও স্বাভাবিক করার চেষ্টা করলে, সেই একই ভুলের পুনরাবৃত্তি করা হবে, যেমনটি আমরা ২০১৪ সালে করেছিলাম”।

মস্কো ইউক্রেনে তার দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রতিবেশীর সামরিক সক্ষমতাকে দূর্বল করার জন্য এবং বিপজ্জনক জাতীয়তাবাদী বলে অভিহিত লোকদের নির্মূল করার উদ্দেশ্যে একটি "বিশেষ অভিযান" হিসাবে তার এই হামলাকে উল্লেখ করে।

ইউক্রেনের বাহিনী রুশ আক্রমণের বিরুদ্ধে কঠোর প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে এবং পশ্চিমা দেশগুলো রাশিয়াকে তার বাহিনী প্রত্যাহার করতে বাধ্য করার প্রয়াসে দেশটির ওপর ব্যাপক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

শুক্রবার, জাতিসংঘের মানবাধিকারের হাইকমিশনার দপ্তরের আনুমানিক হিসেব অনুযায়ী আগ্রাসন শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত ইউক্রেনের ৩৬ জন শিশুসহ ৮১৬ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে।

XS
SM
MD
LG