অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার


বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। (ছবি- ইউএনবি)

বাংলাদেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে অগ্রযাত্রা নিশ্চিত করতে জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, “সকল কাজে আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে এবং তা চালিয়ে যেতে হবে। যদি আমরা সেটা করতে পারি তাহলে বাংলাদেশ আর কখনো পিছিয়ে পড়বে না।”

সোমবার (২১ মার্চ) পটুয়াখালী জেলার পায়রায় ১ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। এ সময় তিনি দেশে শতভাগ বিদ্যুতায়নের ঘোষণা দেন।

শেখ হাসিনা বলেন, “২০০৯ সাল থেকে দেশ সব প্রতিকূলতা ও প্রতিবন্ধকতা উপেক্ষা করে এগিয়ে যাচ্ছে।… জাতির পিতা আমাদের স্বাধীনতা দিয়েছিলেন এবং সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে গরিব মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চেয়েছিলেন। আমরা সেই সোনার বাংলা গড়ব, এটাই আমাদের প্রতিশ্রুতি ও এটাই আমাদের লক্ষ্য।”

এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা সবাইকে চাষাবাদের এক ইঞ্চি জমিও ছাড় না দেওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, “প্রত্যেককে তাদের নিজ নিজ জমিতে ফসল উৎপাদন করতে হবে।” তিনি সবাইকে কৃষকদের পাশে থাকারও আহ্বান জানান।

মহামারির সময়ে ধান কাটায় সহযোগিতার জন্য তিনি দলের নেতা-কর্মী, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগসহ অন্যদের ধন্যবাদ জানান।

এর আগে পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা।

পরে বিদ্যুৎ প্ল্যান্টের কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষ পরিদর্শন করেন।

অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নের ওপর একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানি (প্রাইভেট) লিমিটেড (বিসিপিসিএল), রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন নর্থ-ওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি বাংলাদেশ লিমিটেড (এনডব্লিউপিজিসিএল) এবং চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশনের যৌথ উদ্যোগ উন্নয়ন অংশীদারত্বের অংশ হিসেবে দুই বিলিয়ন ডলারে এই প্ল্যান্ট স্থাপন করেছে।

প্রায় পাঁচ মাস ধরে পরীক্ষা চালানোর পর, পায়রা পাওয়ার প্ল্যান্টের প্রথম ইউনিটটি ২০২০ সালের মে মাসে বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করে।

পাওয়ার ট্রান্সমিশন কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) পায়রা বিদ্যুৎ প্রকল্প থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহের সুবিধার্থে বেশ কয়েকটি সঞ্চালন প্রকল্প হাতে নিয়েছে।

এই সঞ্চালন প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে-পায়রা প্ল্যান্ট থেকে গোপালগঞ্জ পর্যন্ত ১৬০ কিলোমিটার ৪০০ কেভি ডাবল সার্কিট লাইন নির্মাণ, ১৬৪ দশমিক ৬ কিলোমিটার আমিনবাজার-মাওয়া-গোপালগঞ্জ-মোংলা পর্যন্ত ৪০০ কেভি ডাবল সার্কিট লাইন এবং পদ্মা সেতুর কাছে ৯ দশমিক চার কিলোমিটার নদী-ক্রসিং লাইন।

পিজিসিবি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এই প্রকল্পগুলো পায়রা ও রামপাল উভয় প্ল্যান্ট থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহের লক্ষ্যে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে এবং এতে প্রায় ৪ হাজার ৬৫০ কোটি টাকা খরচ হবে। এর মধ্যে ৩ হাজার ২৯৪ কোটি টাকা পায়রা প্ল্যান্ট ট্রান্সমিশন সুবিধার জন্য ব্যয় করা হবে।

XS
SM
MD
LG