অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রাশিয়ার সাথে ওপেকের জোটে আস্থা প্রকাশ করলেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের জ্বালানী মন্ত্রী


দু্বাই-এ অনুষ্ঠিত আটলান্টিক কাউন্সিলের গ্লোবাল এনার্জি ফোরাম এ বক্তব্য রাখছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের জ্বালানী ও অবকাঠামো মন্ত্রী সুহেইল বিন মোহামেদ আল-মাজরুই। ২৮ মার্চ, ২০২২।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের জ্বালানী মন্ত্রী, রাশিয়ার সাথে গঠিত একটি জ্বালানী তেল বিষয়ক জোট সম্পর্কে সোমবার তার আস্থা পুনর্ব্যক্ত করেছেন। এমন জোটের ফলে অপরিশোধিত তেলের দাম কয়েক বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছে যখন কিনা ইউক্রেন রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে বাজার অস্থির হয়ে পড়েছে এবং জ্বালানী ও পণ্যের মূল্য অনেক বেড়ে গেছে।

ঐ মন্ত্রী বলেন যে, দৈনিক ১ কোটি ব্যারেল তেল উৎপাদনকারী দেশ রাশিয়া, ওপেক+ নামের বৈশ্বিক জ্বালানী জোটটির একটি গুরুত্বপূর্ণ সদস্য।

সুহেইল আল-মাজরুই বলেন, “রাজনীতি বাদ দিলেও, আমাদের বর্তমানে ঐ পরিমাণ তেলের প্রয়োজন রয়েছে। যদি না অন্য কেউ এসে ঐ ১ কোটি ব্যারেল সরবরাহ করে, রাশিয়াকে প্রতিস্থাপন করার মত কাউকে আমরা দেখছি না।”

সৌদি আরব এবং রাশিয়ার নেতৃত্বাধীন এই জোটটির জ্বালানী তেলের উৎপাদন বৃদ্ধি করার সক্ষমতা রয়েছে। তাতে করে অপরিশোধিত তেলের দাম কমে আসবে, যা কিনা বর্তমানে ব্যারেল প্রতি ১০০ ডলার ছাড়িয়ে গিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় দেশগুলো, জাপান ও অন্যান্যরা তেলের মূল্য হ্রাস করতে তেল উৎপাদনকারী আরব দেশগুলোর প্রতি আরও বেশি কিছু করার আহ্বান জানিয়ে আসছে। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এই মাসে সংযুক্ত আরব আমিরাত ও সৌদি আরব সফর করে তাদের নিকট এই বিষয়টি উত্থাপন করেন।

ওপেক+ বজায় থাকবে বলে বর্ণনা করে, সেটি থেকে বেরিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতের এককভাবে উৎপাদন বৃদ্ধি করার সম্ভাবনাটি উড়িয়ে দেন আল-মাজরুই।

এখনও পর্যন্ত ওপেক+ ধীরে ধীরে তাদের উৎপাদন বাড়ানোর পরিকল্পনা অনুযায়ীই কাজ করছে। এমন পরিকল্পনা করোনাভাইরাস লকডাউনের সময়ে করা হয়েছিল, যখন কিনা জ্বালানীর চাহিদা হ্রাস পাওয়ার কারণে তেল উৎপাদনকারীদের ব্যাপক মাত্রায় উৎপাদন কমাতে হয়েছিল। তেলের উচ্চ মূল্য তেল উৎপাদনকারী দেশগুলোর অর্থনীতির জন্য সুফল বয়ে এনেছে। অর্থনীতিকে বহুমুখী করার তাদের চেষ্টা সত্ত্বেও, আরব দেশগুলো এখনও তাদের অর্থনীতি গতিশীল রাখতে তেল রফতানীর উপর ব্যাপকভাবে নির্ভরশীল।

XS
SM
MD
LG