অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে চিকিৎসক-নার্সদের কর্মবিরতি


চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে চিকিৎসক-নার্সদের কর্মবিরতি

চট্টগ্রাম মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের বেতন কর্তন ও বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা বাতিলের প্রতিবাদে কর্মবিরতি পালন করেছেন ওই হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্স, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

সোমবার (৪ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১০টার থেকে কর্মবিরতির মাধ্যমে তারা এই আন্দোলন শুরু করেন। কর্মবিরতির কারণে চরম ভোগান্তিতে পড়েন হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী ও তাদের স্বজনেরা।

আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়া একজন চিকিৎসক (নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) বলেন, “চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল পরিচালনা পর্ষদের নতুন কমিটির সদস্যরা দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই অযৌক্তিকভাবে নানান কারণ দেখিয়ে কর্মরত চিকিৎসক, নার্স ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের বেতন কেটে রাখতে শুরু করেন। এই কমিটির বিরুদ্ধে চিকিৎসকদের অনেক অভিযোগও রয়েছে। সেই অভিযোগের জেরে এবং ফিঙ্গার প্রিন্টে কয়েক মিনিট দেরি হওয়াকে কেন্দ্র করে কর্তৃপক্ষ কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন কাটা শুরু করে। এই পদক্ষেপ অতিরিক্ত পর্যায়ে চলে যাওয়ায় তারা এ কর্মবিরতিতে নামতে বাধ্য হন”।

আন্দোলনকারীরা জানান, গত মাসেও তারা একবার কর্মবিরতিতে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীদের কথা মাথায় রেখে কর্মবিরতি বন্ধ রাখেন তারা।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা গুল নাহার নামে এক নারী জানান, “নাক কান গলার ডাক্তার দেখাতে আসছিলাম। টিকেট কাউন্টারে গিয়ে দেখি তারা টিকেট দেবে না। কারণ জানতে চাইলে বলে কর্মবিরতি ডেকেছে”।

এ বিষয়ে মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতাল পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম আজাদ বলেন, “নিয়ম অনুযায়ী তিন দিন কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকলে এক দিনের বেতন কর্তন করার বিধান রয়েছে। কিন্তু সাত দিন অনুপস্থিত থাকার কারণে এক দিনের বেতন কর্তন করা হচ্ছে। এ নিয়ে আন্দোলনে নামেন অনেকে। কর্তৃপক্ষ হাসাপাতালে শৃঙ্খলা ফেরাতে এ ব্যবস্থা নিয়েছে। তবে যেহেতু তারা আন্দোলন করছে, তাদের সঙ্গে আমরা কথা বলব। তাদের দাবি-দাওয়াগুলো শুনব। বর্তমানে তারা আন্দোলন প্রত্যাহার করে কর্মস্থলে যোগ দিয়েছেন”।

XS
SM
MD
LG