অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সামাজিক মাধ্যমে 'টিপ' প্রতিবাদে শামিল হলেন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কর্মকর্তারাও


সামাজিক মাধ্যমে 'টিপ' প্রতিবাদে শামিল হলেন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কর্মকর্তারাও

এবার, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে টিপ পরিহিত ছবি প্রকাশের মধ্য দিয়ে প্রতিবাদ জানালেন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কর্মকর্তারা। ঢাকার এক পুলিশ কনস্টেবল কর্তৃক একজন শিক্ষকের টিপ পরার কারণে লাঞ্ছিত হওয়ার প্রতিবাদে মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের ফেসবুক পাতায় দূতাবাস পরিবার টিপ পরে ছবি পোস্ট দেয়।

পোস্টে লেখা হয়েছে, "এ সপ্তাহে টিপ পরার জন্য একজন পুলিশ কর্তৃক এক শিক্ষিকা লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশকারী সকল বাংলাদেশীর সাথে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস সম্প্রদায় যোগ দিয়েছে। যেকোনো ধরনের হয়রানি অগ্রহণযোগ্য। যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের সদস্যগণ বাংলাদেশের মানুষের বিভিন্নতা উদযাপনপূর্বক সকল ব্যক্তির প্রতি সম্মানের আহ্বান জানিয়ে উক্ত শিক্ষিকা ও হয়রানির শিকার সকলের সাথে সংহতি জানিয়ে কপালে টিপ পরেছেন।"

শনিবার রাজধানীর ফার্মগেট এলাকায় টিপ পরায় এক কলেজ শিক্ষক হয়রানির শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠে। এরপরই নারী ও অধিকার সংগঠনগুলো এ ঘটনার সমালোচনা করতে থাকেন। সাংসদ সুবর্ণা মুস্তাফা এ ঘটনায় জড়িত অপরাধীর শাস্তি দাবি করে রবিবার সংসদে বিষয়টি উত্থাপন করলে এটি সংসদ পর্যন্ত গড়ায়। সেই সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ঘটনার প্রতিবাদে নারীরা টিপ পরিহিত ছবি প্রকাশ করার মধ্য দিয়ে প্রতিবাদ জারি রাখেন।

হয়রানির শিকার ঢাকার বেসরকারি তেজগাঁও কলেজের থিয়েটার অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের প্রভাষক লতা সমাদ্দার। থানায় লিখিত অভিযোগে তিনি জানান, কপালে টিপ পরার জন্য তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করা হয়। শনিবার (২ এপ্রিল) রাজধানী ঢাকার ব্যস্ততম এলাকা ফার্মগেটে এই ঘটনা ঘটে বলে থানায় দায়ের করা অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

ঘটনার বর্ণনায় তিনি ভয়েস অফ আমেরিকাকে জানান, "আমি হেঁটে কলেজের দিকে যাচ্ছিলাম, হুট করে পাশ থেকে মধ্যবয়সী, দাড়িওয়ালা একজন “টিপ পরছোস কেন” বলেই বাজে গালি দিলেন।...একটা পর্যায়ে তিনি মোটরসাইকেল আমার শরীরের ওপর চালিয়ে দিতে চেষ্টা করেন। আমি সড়ে দাঁড়াই। কিন্তু আমার পায়ের পাতার ওপর দিয়েই বাইক চালিয়ে চলে যান। এতে আমার পা আঘাতপ্রাপ্ত হয়।”

শিক্ষককে হয়রানির অভিযোগে এরই মধ্যে ওই পুলিশ সদস্যকে বরখাস্ত করা হয়েছে। সোমবার তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার বিপ্লব সরকার জানান, বরখাস্ত করা পুলিশ সদস্যের নাম নাজমুল তারেক। তিনি ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কনস্টেবল (নিরাপত্তা বিভাগ) হিসেবে কর্মরত। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ডিএমপি জানায়, ওই পুলিশ সদস্য দোষ স্বীকার করায় তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

(এই প্রতিবেদনের কিছু তথ্য ইউএনবি থেকে নেওয়া হয়েছে।)

XS
SM
MD
LG