অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইউক্রেন ও মিত্ররা রেলস্টেশনে হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে হামলার জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেছে


ইউক্রেনের ক্র্যামাটর্স্কের রেলস্টেশনে রাশিয়ার গোলাবর্ষণের পরে ইউক্রেনীয় সেনারা ক্ষতিগ্রস্ত একটি গাড়ির পাশে দাঁড়িয়ে আছে। ৮ এপ্রিল ২০২২

ইউক্রেন এবং তার মিত্র দেশগুলো শুক্রবার (৮ এপ্রিল) একটি জনাকীর্ণ রেলস্টেশনে মারাত্মক ক্ষেপণাস্ত্র হামলার নিন্দা জানিয়েছে এবং এই হত্যাকাণ্ডের জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেছে।

ইউক্রেনের রাষ্ট্রীয় রেলওয়ে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পূর্ব ইউক্রেনীয় শহর ক্র্যামাটর্স্কের স্টেশনে পাঁচ শিশুসহ অন্তত ৫২ জন নিহত এবং অন্তত ৮৭ জন আহত হয়েছে। ওই স্টেশনটি বেসামরিক নাগরিকদের সরিয়ে নেওয়ার জন্য ব্যবহৃত হচ্ছিল।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেন্সকি এই হামলাকে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর ইচ্ছাকৃত হামলা বলে অভিহিত করেছেন।

সামাজিক মাধ্যমে জেলেন্সকি বলেন, “যুদ্ধক্ষেত্রে আমাদের মুখোমুখি দাঁড়ানোর শক্তি বা সাহস নেই বলেই (রাশিয়ান সেনারা) বেসামরিক জনগণকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করছে”।

শুক্রবার রাতে এক ভিডিও ভাষণে জেলেন্সকি বলেন, “আমরা এই যুদ্ধাপরাধের জন্য কড়া বৈশ্বিক প্রতিক্রিয়া আশা করছি”।

তিনি বলেন, “কে কী করেছে, কে কী আদেশ দিয়েছে, ক্ষেপণাস্ত্রটি কোথা থেকে এসেছে, কে তা পরিবহন করেছে, কারা নির্দেশ দিয়েছে এবং কীভাবে এই হামলার সিদ্ধান্ত হয়েছে, তার প্রতিটি মিনিটের খোঁজ করবে ইউক্রেন”।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন টুইটারে বলেছেন যে, এই হামলাটি রাশিয়ার দ্বারা সংঘটিত আরেকটি “ভয়াবহ নৃশংসতা”। ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেস বলেছেন, “বেসামরিক এবং গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামোর ওপর হামলা একটি যুদ্ধাপরাধ”।

জাতিসংঘ রেলস্টেশনে হামলা এবং অন্য হামলাকে “সম্পূর্ণভাবে অগ্রহণযোগ্য” এবং “আন্তর্জাতিক মানবিক আইন ও আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের চরম লঙ্ঘন” বলে অভিহিত করেছে এবং বলেছে, “এর জন্য অপরাধীদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে”।

জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের “নৃশংস এই যুদ্ধের অবিলম্বে সমাপ্তির” আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেছেন।

ক্র্যামাটর্স্কের রেলস্টেশনে দুটি ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হেনেছে বলে জানা গেছে। দোনেৎস্ক অঞ্চলের কর্মকর্তারা বলেছেন যে, অঞ্চলটিতে রাশিয়ার বড় আক্রমণের আশঙ্কায় হাজার হাজার মানুষ নিরাপদ এলাকায় যাওয়ার জন্য স্টেশনে জড়ো হয়।

রাশিয়া ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর কথা অস্বীকার করেছে এবং পরিবর্তে ইউক্রেনকে দোষারোপ করেছে এবং বলেছে যে, তারা স্টেশনে আঘাতকারী ক্ষেপণাস্ত্র—তোচকা-ইউ- ব্যবহার করে না।

যাহোক, ওয়েবসাইট ডিফেন্স ব্লগ ৩১ মার্চ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে যে, রাশিয়ার সামরিক যান সম্প্রতি অব্যবহৃত কিছু ক্ষেপণাস্ত্র বহন করছিল। ইউক্রেনে রুশ বাহিনীর কাছে পশ্চিমে এসএস-২১ বা স্ক্যারাব নামে পরিচিত এই ক্ষেপণাস্ত্রের ছবিও তোলা হয়েছে বলে দাবি করে ওয়েবসাইটটি।

শুক্রবারের (৮ এপ্রিল) সংবাদ সম্মেলনে, পেন্টাগনের মুখপাত্র জন কারবি বলেন যে, যুক্তরাষ্ট্র এস-৩০০ ব্যবস্থা প্রতিস্থাপনের জন্য স্লোভাকিয়ায় অস্থায়ীভাবে একটি প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা পাঠাবে।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে রাশিয়ার ওপর আরও নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। এর মধ্যে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লেইন এবং ইইউ পররাষ্ট্র নীতির প্রধান জোসেপ বোরেল জেলেন্সকির প্রতি সমর্থন প্রদর্শনে কিয়েভ সফরে যান।

নতুন পদক্ষেপের মধ্যে রয়েছে কয়লা, কাঠ ও রাসায়নিক আমদানির ওপর নিষেধাজ্ঞা এবং চারটি রুশ ব্যাংকের সঙ্গে সমস্ত লেনদেন স্থগিত করা।

বৃহস্পতিবারের শেষ দিকে, জেলেন্সকি বলেন, কিয়েভ থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে বোরোদিয়াঙ্কা শহরের পরিস্থিতি বুচা শহরের চেয়েও খারাপ।

[ভয়েস অফ আমেরিকার জেফ সেলডিনন, প্যাটসি উইদাকুসওয়ারা ও মাসুদ ফারিভার এই প্রতিবেদনে সাহায্য করেছেন। কিছু তথ্য দ্য অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস ও রয়টার্স থেকে নেওয়া হয়েছে]

XS
SM
MD
LG