অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চীন তাইওয়ানের অধিকার কর্মীকে মুক্তি দিল


ফাইল - তাইওয়ানের অধিকার কর্মী লি মিং-চে মধ্য চীনের ইউইয়াং-এর ইন্টারমিডিয়েট পিপলস কোর্টে অধিবেশন চলাকালীন বসে আছেন। ছবিটি ইউইয়াং-এর ইন্টারমিডিয়েট পিপলস কোর্টের ধারণ করা ভিডিও থেকে নেওয়া হয় ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে

চীন সরকারের সমালোচনা করার জন্য তাইওয়ানের অধিকার কর্মী লি মিং-চে চীনে পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের মেয়াদ শেষ করে শুক্রবার তাইওয়ানে ফিরে এসেছেন।

শুক্রবার সকালে তাইপেইতে পৌঁছানোর পর লি সরাসরি ১০ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে চলে যান এবং কোয়ারেন্টিন শেষ হওয়ার পরে তিনি সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে কথা বলবেন।

তাইওয়ানে লি'র প্রত্যাবর্তনের মধ্যদিয়ে ২০১৭ সালে শুরু হওয়া একটি দীর্ঘ কাহিনীর অবসান হল। লি ম্যাকাও পরিদর্শন করার সময় গুম হয়ে যান। এটি হংকং-এর মতো চীন দ্বারা পরিচালিত একটি বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল।

পরে দেখা যায় লিকে চীনে আটক করা হয়েছে এবং “রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাকে ধ্বংস করার” অভিযোগে তাকে অভিযুক্ত করা হয়। চীনে সরকারের সমালোচনা করার জন্য সক্রিয়বাদী, মানবাধিকার আইনজীবী এবং এমনকি সাধারণ নাগরিকদের বিরুদ্ধে এ রকম ঢালাও শব্দ ব্যবহার করে তাদের দোষী সাব্যস্ত করা হয়।

গ্রেফতার হওয়ার আগে লি তাইওয়ানের বেসরকারী সংস্থা সম্প্রদায়ের সদস্য ছিলেন। ঐ সংস্থার সাথে ক্ষমতাসীন ডেমোক্রেটিক পিপলস পার্টির সম্পর্ক রয়েছে।

তাইওয়ানের গণমাধ্যমের মতে লি যখন কমিউনিস্ট পার্টির সমালোচনা করেছিলেন এবং ব্যক্তিগত চ্যাট গ্রুপ এবং চীনা সামাজিক মাধ্যমে গণতান্ত্রিক ধারণাগুলি প্রচার করেছিলেন তখনই তিনি বেইজিংয়ের নজরে পড়েন। তিনি তার পরিচিত কিছু লোকজনকে ঐ ধরণের বিষয়ের উপর লেখা বইও পাঠিয়েছিলেন এবং তিনি কারাগারে বন্দী চীনের ভিন্নমতাবলম্বীদের পরিবারকে সহায়তা করেছিলেন।

২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে লিকে আনুষ্ঠানিকভাবে পাঁচ বছরের কারাদন্ডে দন্ডিত করা হয়। তাঁর বিচার চলাকালে মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো এবং আন্তর্জাতিক মিডিয়া তা ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করেছিল।

হার্ভার্ড ফেয়ারব্যাংক সেন্টার ফর চাইনিজ স্টাডিজের পোস্টডক্টরাল রিসার্চ ফেলো লেভ নাচম্যান বলেন, আটক থাকার সময় লি তাইওয়ানের স্থানীয় এনজিও এবং তার স্ত্রী ঐ কেসটি সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য ক্রমাগত কাজ করে তিনি সবার দৃষ্টি আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠেন।

নাচম্যান ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেন,“তাইওয়ানের সক্রিয়বাদীরা কখনও চীনেগেলে তাদের সঙ্গে কি ঘটতে পারে তার দৃষ্টান্ত হচ্ছেন লি।”

২০১৩ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং মানবাধিকার কর্মীদের পাশাপাশি আইনজীবীদের ওপর দমন-পীড়নে নেতৃত্ব দিয়েছেন। “রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাকে বিনষ্ট করা” থেকে শুরু করে “উস্কানিমূলক কথাবার্তা” বা এমনকি বিদেশী শক্তির সাথে যোগসাজশ করার অভিযোগে তারা লোকজনকে অভিযুক্ত করতে পারেন।

তাইওয়ানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম শুক্রবার জানিয়েছে, লি'র মুক্তির পরেও চারজন তাইওয়ানি ব্যবসায়ী এবং বিদ্বজ্জন কারাগারে আটক রয়েছেন তারা তাইওয়ানে ফিরতে পারছেন না কারণ তাদের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ আনা হয়েছে।

লি'র মতো মামলাগুলিও জটিল কারণ চীন তাইওয়ানকে তাদেরই সার্বভৌম অঞ্চল হিসাবে বিবেচনা করে। প্রেসিডেন্ট শি শান্তিপূর্ণ উপায়ে অথবা জোর করে তাইওয়ানকে তাদের সঙ্গে যুক্ত করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন।

XS
SM
MD
LG