অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইউক্রেনের লেভিভে ভয়াবহ ক্ষেপণাস্ত্র হামলা


ইউক্রেনের ডোনেটস্ক অঞ্চলে গোলার আঘাতে বিধ্বস্ত একটি ভবনে এক ব্যক্তি দাঁড়িয়ে আছে। ২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫।

ইউক্রেনের পশ্চিমাঞ্চলের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন যে, সোমবার লেভিভে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা হয়েছে, যাতে অন্তত ছয়জন নিহত হয়েছেন। প্রায় দুই মাস আগে আরম্ভ হওয়া রাশিয়ার আক্রমণটির ভয়াবহ সহিংসতা থেকে লেভিভ তুলনামূলকভাবে নিরাপদ ছিল।

লেভিভের আঞ্চলিক গভর্নর ম্যাকসিম কোজিস্তকি জানান যে, সামরিক অবকাঠামোতে তিনটি ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হানে, এবং গাড়ির চাকা মেরামতের একটি দোকানে আরেকটি ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত করে।

দেশটির অন্যান্য জায়গায়, সংঘাতময় এলাকাগুলো থেকে বেসামরিক মানুষজনকে সরিয়ে নেওয়ার প্রচেষ্টাটি সোমবার দ্বিতীয়দিনের মত আটকে রয়েছে।

উপপ্রধানমন্ত্রী ইরিনা ভেরেশচুক সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলেন, “আন্তর্জাতিক মানবতা আইনের লঙ্ঘন করে, রাশিয়ার দখলদারেরা মানবিক রুটগুলো আটকানো ও [সেগুলোতে] গোলাবর্ষণ করা বন্ধ করেনি।”

এদিকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেন্সকি, রুশ বাহিনীর বিরুদ্ধে, খারকিভের আবাসিক মহল্লাগুলোতে মর্টার ও কামানের গোলাবর্ষণ করে “ইচ্ছাকৃতভাবে ত্রাস” সৃষ্টি করার অভিযোগ করেছেন। অপরদিকে, দক্ষিণাঞ্চলের মারিউপোল শহরে ইউক্রেনীয় বাহিনী অস্ত্র সমর্পণের জন্য রাশিয়ার বেঁধে দেওয়া সময়সীমা প্রত্যাখ্যান করেছে।.

রবিবার দিনের শেষ দিকে প্রকাশিত এক ভিডিও বার্তায় জেলেন্সকি বলেন, তিনি ধারণা করছেন যে রাশিয়া “নিকট ভবিষ্যতে” পূর্বাঞ্চলের ডনব্যাস অঞ্চলে নতুন করে আক্রমণ আরম্ভ করবে।

ডনব্যাস অঞ্চলেই লুহানস্ক ও ডনেটস্ক অবস্থিত। অঞ্চলটির সাথে সাথে দক্ষিণের মারিউপোল শহরটি দখল করতে পারলে, সেটি রাশিয়াকে তাদের দেশ থেকে ক্রাইমিয়া পর্যন্ত একটি করিডোরের নিয়ন্ত্রণ দেবে। রাশিয়া ২০১৪ সালে ক্রাইমিয়া দখল করে নিয়েছিল।

শুক্রবার ধারণকৃত ও রবিবারে প্রচারিত সিএনএন এর একটি সাক্ষাৎকারে জেলেন্সকি বলেন যে, ইউক্রেনের জন্য ডনব্যাসের যুদ্ধ খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং রাশিয়া ঐ এলাকাটি দখল করতে পারলে তারা আবারও কিয়েভ দখলের চেষ্টা করতে পারে।

XS
SM
MD
LG