অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

যুদ্ধ থেকে পালিয়ে আসা কয়েক হাজার ইউক্রেনীয়কে ভিসা দিল অস্ট্রেলিয়া


যুদ্ধ থেকে পালানোর সময় লেভিভ থেকে পোল্যান্ডগামী একটি ট্রেনে একটি মেয়ে তার মায়ের দিকে তাকিয়ে আছে। ১৫ এপ্রিল, ২০২২।

অস্ট্রেলিয়ায় প্রায় ৬ হাজার ইউক্রেনীয়কে মানবিক কারণে ভিসা দেয়া হয়েছে। এই ভিসা ইউক্রেনীয় শরণার্থীদের ৩ বছর পর্যন্ত কাজ এবং পড়াশোনা করার অনুমতি দেবে।

ইনা ইলিয়েনকো এবং তার ৮ বছর বয়সী ছেলে আন্দ্রে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে তাদের বাড়ি থেকে পালিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় নিরাপত্তার জন্য কঠিন যাত্রা শুরু করেন।

“প্রথমে স্লোভাকিয়ার সীমান্ত অতিক্রম, তারপর স্লোভাকিয়া থেকে পোল্যান্ড, পোল্যান্ড থেকে অস্ট্রিয়া এবং অস্ট্রিয়া থেকে অস্ট্রেলিয়া। অস্ট্রেলিয়ায় আমি খুব নিরাপদ, খুব নিরাপদ বোধ করছি।“

ইউরোপে যুদ্ধে বাস্তুচ্যুতদের পুনর্বাসনে সহায়তাকারী ইউক্রেনীয় কাউন্সিল অফ নিউ সাউথ ওয়েলসের অ্যান্ড্রু মেনসিনস্কি বলেছেন, “ এগুলো এমন গল্প যা আমরা সবাই আমাদের দাদা-দাদির কাছ থেকে শুনেছি, ১৯৪৫ সালে রেড আর্মির কাছ থেকে পালিয়ে যাওয়ার গল্প। সত্যি কথা বলতে কি সেগুলো আমাদের জন্য শৈশবের গল্প ছিল।“

কিন্তু মানবিক কারণে ইউক্রেনীয়দের ভিসা প্রদানের অস্ট্রেলিয়ার সিদ্ধান্তটি কিছু সক্রিয়বাদির দ্বারা সমালোচিত হয়েছে। তারা বলছে, এটি অন্যান্য আশ্রয়প্রার্থীদের দুর্দশাকে উপেক্ষা করে। সরকার সেই দাবি প্রত্যাখ্যান করে জোর দিয়ে বলে যে, তাদের নীতিগুলো সবচেয়ে দুর্বলদের অগ্রাধিকার দেয়।

তবে রিফিউজি অ্যাকশন কোয়ালিশনের ইয়ান রিন্টুল তাতে আশ্বস্ত নন।

ক্যানবেরার সরকার বলেছে যে, তারা ইউক্রেনের যুদ্ধ থেকে পালিয়ে আসা আরও শরণার্থীদের স্বাগত জানাবে এবং তারা রাশিয়ার ওপর ব্যাপক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন ইউক্রেনে রাশিয়ার নৃশংস, বেআইনি ও অন্যায় আগ্রাসনের নিন্দা জানিয়েছেন।

তার সরকার ইউক্রেনে ক্ষেপণাস্ত্র এবং সাঁজোয়া গাড়ির পাশাপাশি মানবিক সহায়তা পাঠিয়েছে।

XS
SM
MD
LG