অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভকারীদের আটক করেছে পুলিশ


ইয়েরেভানে বিক্ষোভরত নাগরিক

আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ানের পদত্যাগের আহ্বান জানানো অনেক বিক্ষোভকারীকে বৃহস্পতিবার (৫ মে) আটক করেছে দেশটির পুলিশ। বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, নাগার্নো-কারাবাখ অঞ্চলের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী এমন ছাড় দিয়েছেন যা মেনে নেওয়া যায় না ।

স্থলবেষ্টিত দক্ষিণ ককেশীয় দেশটিতে সাম্প্রতিক দিনগুলোতে পাশিনিয়ানের বিরোধিতাকারীদেরকে রাজধানী ইয়েরেভানের প্রধান সড়ক অবরোধ করতে এবং নাগরিক অবাধ্যতার কাজ করার জন্য জনগণকে আহ্বান জানাতে রাস্তায় নেমে আসতে দেখা গেছে।

স্থানীয় টেলিভিশন ফুটেজে দেখা গেছে পুলিশ কর্মকর্তারা বিক্ষোভকারীদের ধরে ধরে ভ্যানের দিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে। ইয়েরেভানের পুলিশ জানিয়েছে, দুপুর পর্যন্ত তারা ৪৯ জন বিক্ষোভকারীকে আটক করেছে।

২০২০ সালে সংঘটিত ৬ সপ্তাহের যুদ্ধে আর্মেনিয়া আজারবাইজানের কাছে পরাজিত হওয়ার পর থেকে এবং বিতর্কিত নাগর্নো-কারাবাখ ও এর আশেপাশের উল্লেখযোগ্য অঞ্চল হারিয়ে ফেলার পর থেকে পাশিনিয়ান ব্যাপক সমালোচনার সম্মুখীন হয়েছেন।

গত মাসে পাশিনিয়ান বলেছিলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় আর্মেনিয়াকে নাগর্নো-কারাবাখের অবস্থান সম্পর্কিত “মাপকাঠি কমিয়ে আনার ” আহ্বান জানিয়েছে। তার এ বক্তব্য বিরোধীদের ক্ষুব্ধ করেছিল।

নাগর্নো-কারাবাখ একটি ছিটমহল। এটি আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের অংশ হিসেবে স্বীকৃত কিন্তু সাম্প্রতিক সময় পর্যন্ত সম্পূর্ণরূপে জাতিগত আর্মেনিয়ানদের দ্বারা অধ্যুষিত ও নিয়ন্ত্রিত ছিল।

গত মাসে আজারবাইজান বলেছিল যে তারা আর্মেনিয়ার সাথে একটি শান্তিচুক্তি নিয়ে আলোচনার জন্য প্রস্তুত ছিল। কিন্তু শর্ত ছিল ইয়েরাভানকে অঞ্চলের উপর তাদের যে কোন দাবি পরিত্যাগ করতে হবে।

পাশিনিয়ান বলেন আরও ক্ষতি এড়াতে তিনি ২০২০ সালে রাশিয়ার মধ্যস্ততায় যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়েছিলেন। তিনি বলেছেন নাগর্নো-কারাবাখের জাতিগত আর্মেনিয়ানদের সাথে পরামর্শ না করে আজারবাইজানের সাথে কোনো শান্তিচুক্তি তিনি স্বাক্ষর করবেন না।

XS
SM
MD
LG