অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

উত্তর কোরিয়ায় আরও কোভিড-১৯ রোগী সনাক্ত, ওষুধ ঘাটতি মোকাবেলার চেষ্টা


উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন তার কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যাতে তারা দেশটিতে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় উন্নত দেশগুলোর অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নেয়, ১৪ মে ২০২২। ফটো: কোরিয়ান সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সি

উত্তর কোরিয়া রবিবার ৩,৯২,০০০ নতুন জ্বরাক্রান্ত রোগীর খবর জানিয়েছে। এছাড়া আরও আটজনের মৃত্যু হয়েছে। এর ফলে সেখানকার “বিস্ফোরক” জ্বরের মহামারীতে জানামতে মৃত্যুর সংখ্যা ৫০-এ পৌঁছেছে। রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এ তথ্য জানায়।

সরকারী কেসিএনএ-র সোমবার প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, এপ্রিলের শেষ দিক থেকে আগের দিন সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত, উত্তর কোরিয়ায় “অজানা উৎসের জ্বরে” আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা মোট ১২,১৩,৫৫০ এ দাড়িয়েছে। পাঁচ লক্ষেরও বেশি মানুষকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। অপরদিকে ৬,৪৮,৬৩০ জনের বেশি মানুষ সুস্থ হয়েছেন বলে প্রকাশিত তথ্যে জানানো হয়।

কোভিড-১৯ সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়া রোগীর সংখ্যাও বেড়ে ১৬৮ হয়েছে বলে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন কেসিটিভি সোমবার জানায়। তবে, তাতে শুধুমাত্র শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত গণনা জানানো হয়। তারা জানায় যে, পিয়ংইয়ং সংক্রমণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে রয়েছে এবং সনাক্ত নিশ্চিত রোগীর সিকিভাগ সেখানে রয়েছে। সনাক্তদের ৪২ জন পিয়ংইয়ং এর এবং অপর ২০ জন চীনের সীমান্তবর্তী উত্তর পিয়ংগান প্রদেশের।

শনিবার পর্যন্ত মৃতদের মধ্যে ২২ জন রোগের লক্ষণ নিয়ে মারা যান এবং ১৭ জনের চিকিৎসাজনিত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় মৃত্যু হয়েছে বলে, কেসিটিভি জানিয়েছে। তাদের মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি ৫০ বা তার বেশি বয়সী ব্যক্তি ছিলেন। তবে, তাদের মধ্যে ছয়জন ১০ বছরের কম বয়সী শিশুও রয়েছে।

রবিবার ওয়ার্কার্স পার্টির রাজনৈতিক ব্যুরোর আরেকটি জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয় বলে কেসিএনএ জানায়। সভায় নেতা কিম জং উন রাষ্ট্রীয় মজুদ থেকে ফার্মেসিতে ওষুধের সরবরাহে বিলম্ব হওয়ার কঠোর সমালোচনা করেছেন। ফার্মেসিগুলোকে সপ্তাহান্তেও ২৪ ঘন্টা খোলা রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

XS
SM
MD
LG