অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সমর্থক ও বিরোধীদের মধ্যে সংঘর্ষের পর লিবিয়ার নতুন প্রধানমন্ত্রী ত্রিপোলি ত্যাগ করেছেন


লিবিয়ার দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রধানমন্ত্রীর একজন আব্দুল হামিদ দ্বেইবাহ-র অনুগত বাহিনী রাজধানী ত্রিপোলির রাস্তায় পাহাড়া দিচ্ছে। ১৭ মে, ২০২২।

মঙ্গলবার ভোরে লিবিয়ার দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রধানমন্ত্রীর মিলিশিয়া সমর্থকেরা একে অপরের দিকে রকেট এবং স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র দিয়ে গুলি ছুঁড়েছে, সরকারি প্রশাসন ভবনের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার ব্যর্থ প্রচেষ্টার পর সংসদ-নিযুক্ত প্রধানমন্ত্রী ফাথি বাশাগাকে রাজধানী থেকে সরে যেতে বাধ্য করেছে।

বাশাগার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ইসাম আবু জারেইবা রাজধানীতে শান্তি বজায় রাখার জন্য সকল পক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। লিবিয়ায় জাতিসংঘের বিশেষ দূত স্টেফানি উইলিয়ামস একটি টুইট বার্তায় প্রতিদ্বন্দ্বী বাহিনীকে “দেশে শান্তি বজায় রাখতে এবং জনগণের সম্পত্তির ক্ষতি সাধন থেকে বিরত থাকতে বলেছেন।“

বাশাগাকে নিযুক্ত করা লিবিয়ার সংসদ গত সপ্তাহে পরামর্শ দিয়েছিল যে, তিনি ২০১১ সালের বিপ্লবে ক্ষমতাচ্যুত এবং নিহত লিবিয়ার প্রাক্তন নেতা মোয়াম্মার গাদ্দাফির নিজ শহর এবং মধ্য লিবিয়ার বন্দর নগরী সির্তে তার সরকার গঠন করবেন।

২০২০ সালে জাতিসংঘের দ্বারা মনোনীত প্রধানমন্ত্রী দ্বেইবাহ ২০২১ সালের ডিসেম্বরের নির্বাচনের পরে পদত্যাগ করার কথা ছিল। কিন্তু নির্বাচন স্থগিত হওয়ার পরে তিনি পদত্যাগ করতে অস্বীকৃতি জানান।

লিবিয়ার সংসদীয় নেতারা এবং দেশটির শাসক পরিষদ সপ্তাহান্তে কায়রোতে নির্বাচনের সময় পুনঃনির্ধারণ এবং তেল উৎপাদন পুনরায় শুরু করা এবং তেলের রাজস্ব ভাগাভাগি করার বিষয়ে করণীয়সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করার জন্য সাক্ষাৎ করেছেন।

XS
SM
MD
LG