অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আফগানিস্তান আয়োজিত শান্তি আলোচনায় পাকিস্তান ও জঙ্গিদের যুদ্ধবিরতির আহ্বান


মোহমন্দ এজেন্সির একটি পাকিস্তানি উপজাতীয় জেলার একটি শিবিরে তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তানের (টিটিপি) কয়েকজন সশস্ত্র জঙ্গিকে দেখা যাচ্ছে, তাদের পাশে একটি স্তম্ভে লেখা রয়েছে "দীর্ঘজীবী তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান" । ২১শে জুলাই, ২০০৮ ।

আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন তালিবান বুধবার নিশ্চিত করেছে যে আফগানিস্তানের এক অভয়ারণ্যের মধ্যে থেকে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসী হামলা চালাচ্ছে এমন একটি নিষিদ্ধ জঙ্গি গোষ্ঠীর পলাতক নেতাদের সঙ্গে পাকিস্তানের নতুন করে শান্তি আলোচনার আয়োজন করেছে।

উচ্চপদস্থ সূত্রগুলো ভয়েস অফ আমেরিকাকে জানিয়েছে, পাকিস্তানের একজন শীর্ষ সেনা কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল ফয়েজ হামিদ উগ্রবাদি গোষ্ঠী তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তান (টিটিপি) বা পাকিস্তানি তালিবানের প্রতিনিধিদের সাথে রাজধানী কাবুলে এই সপ্তাহের বৈঠকে তার দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন। দুই দিনব্যাপী আলোচনা গোপনে অনুষ্ঠিত হয়। পাকিস্তানি কর্মকর্তারা আলোচনার বিষয়ে প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য করেননি তবে টিটিপি এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

স্বাগতিক সরকারের প্রধান মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ বুধবার প্রথমবারের মতো আলোচনার কিছু বিবরণ দেবার সময়ে বলেছেন, তারা সংলাপ প্রক্রিয়ার মধ্যস্থতা করছেন।

মুজাহিদ টুইটারে লিখেছেন, আলোচনাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আলোচনাকারী দলগুলি সাময়িকভাবে বৈরীতা বন্ধ করতে সম্মত হয়েছে। তিনি বিশদ বিবরণ না দিয়ে বলেন যে "সংশ্লিষ্ট বিষয়ে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি"ও হয়েছে।

তালিবান শাসিত আফগানিস্তানের নিজেদের দেওয়া নাম ব্যবহার করে মুজাহিদ জোর দিয়ে বলেন, " ইসলামিক এমিরেট অফ আফগানিস্তান , শান্তি প্রচারের জন্য সরল বিশ্বাসে, আলোচনা প্রক্রিয়া সফল করার জন্য প্রচেষ্টা করে এবং উভয় পক্ষেরই সহনশীল এবং নমনীয় হওয়ার প্রত্যাশা করে।"

টিটিপি বুধবার গণমাধ্যমে একটি বিবৃতি জারি করে বলেছে, কাবুলের শাসকদের মধ্যস্থতায় "আলোচনা চলছে"। জঙ্গিদের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মুসলমানদের ঈদের উৎসবের জন্য পূর্বে সম্মত হওয়া ১০ দিনের যুদ্ধবিরতি ৩০ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

XS
SM
MD
LG