অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রেভোলিউশনারি গার্ড সদস্য হত্যাকাণ্ডের প্রতিশোধ নেবার অঙ্গীকার করল ইরান


ইরানের ইসলামিক রেভোলিউশনারি গার্ডের সদস্য, কর্নেল সায়াদ খোদাই-র পরিবারের সদস্যরা, গাড়িতে থাকা তার লাশের পাশে দাঁড়িয়ে কাঁদছেন। ২২ মে ২০২২ তারিখে দুই আততায়ীর গুলিতে তেহরানে তার মৃত্যু হয় বলে খবর পাওয়া যায়। (রয়টার্সের মাধ্যমে প্রাপ্ত)

তেহরানের কেন্দ্রে রবিবার আততায়ীর গুলিতে নিহত রেভোলিউশনারি গার্ডের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে প্রতিশোধের অঙ্গীকার করেছেন ইরানের কট্টরপন্থী প্রেসিডেন্ট।

কর্নেল হাসান সায়াদ খোদাই-কে শহীদ হিসেবে সম্ভাষণ করে ইরানের প্রেসিডেন্ট ইবরাহিম রাইসি “বৈশ্বিক ঔদ্ধত্যের হাতকে” হত্যাকাণ্ডের জন্য দায়ী করেন। এর মাধ্যমে তিনি যুক্তরাষ্ট্র এবং ইসরাইল সহ অন্যান্য মিত্রদের প্রতি নির্দেশ করেছেন।

এখন পর্যন্ত কেউ হত্যার দায় স্বীকার করেনি। রবিবার দুপুরে মোটরবাইকে করে অজ্ঞাতপরিচয় দুই বন্দুকধারী হত্যাকাণ্ডটি ঘটায়। তারা গাড়ির ভেতরে খোদাইকে পাঁচবার গুলি করে। সে সময়ে তিনি একটি সস্তা সাইপা প্রাইড গাড়িতে ছিলেন। এটি ইরানের গাড়িগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সস্তা এবং সাধারণ গাড়িগুলোর একটি।

তবে, ইরানে এর আগে হওয়া হত্যাকাণ্ডের ঘটনার সাথে এই আক্রমণের মিল রয়েছে। যেমন, তাদের পারমাণবিক বিজ্ঞানীদের উপর হওয়া হামলাগুলো। আগের আক্রমণগুলোর জন্য ইসরাইলকে দায়ী করা হয়েছিল।

খোদাইকে “মাজারের রক্ষক” হিসেবে শনাক্ত করে রেভোলিউশনারি গার্ড। এর মাধ্যমে বিদেশে কার্যক্রম তদারককারী কুদস বাহিনীর সেসব গার্ডদের বোঝানো হয়, যারা কিনা সিরিয়া ও ইরাকের ইসলামিক স্টেট গ্রুপের বিরুদ্ধে লড়াই করে।

ইরান এখনও খোদাই’র জীবন সম্পর্কে কোন নির্দিষ্ট তথ্য প্রদান করেনি। ইসরাইলের গণমাধ্যম রবিবার রাতে এমন খবর প্রচার করে, যাতে খোদাই’র বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয় যে তিনি ইসরাইলের কূটনীতিক, ব্যবসায়ী এবং বিদেশে অবস্থানরত অন্যান্য কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছিলেন।

সংবাদগুলোতে কোন তথ্যসূত্র উল্লেখ করা হয়নি। এটি ইঙ্গিত করে যে, ইসরাইলের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা সাংবাদিকদের ইরানের এই কর্নেল বিষয়ে তথ্য প্রদান করেছে। ইসরাইল সরকারের পক্ষ থেকে কোন আনুষ্ঠানিক মতামত জানানো হয়নি।

XS
SM
MD
LG