অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

“জরুরি খাদ্য পরিস্থিতি” ঘোষণা করল চাদ, আন্তর্জাতিক সহায়তার আবেদন


চাদের জামেনা’র রাস্তায় ভিক্ষা করছেন এক নারী, ২৬ এপ্রিল ২০২১। (ফাইল ফটো)
চাদের জামেনা’র রাস্তায় ভিক্ষা করছেন এক নারী, ২৬ এপ্রিল ২০২১। (ফাইল ফটো)

চাদ বৃহস্পতিবার তাদের স্থলবেষ্টিত দরিদ্র দেশটিতে “জরুরি খাদ্য পরিস্থিতি” ঘোষণা করে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি সহায়তার আবেদন জানিয়েছে তারা।

আফ্রিকান ইউনিয়নের প্রধান এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের মধ্যে শুক্রবারের অনুষ্ঠিতব্য বৈঠকের পূর্বে এই আবেদন জানানো হল। ঐ বৈঠকে ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের পর খাদ্যশস্য সরবরাহ বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

দেশটির শাসকের গদিতে থাকা সামরিক জান্তা প্রধানের স্বাক্ষরিত এক নথিতে বলা হয়, “এই বছর ক্রম-অবনতিশীল খাদ্য ও পুষ্টি পরিস্থিতির ফলে এবং যদি কোন মানবিক সহায়তা প্রদান করা না হয় তাহলে জনগণের প্রতি ক্রমবর্ধমান ঝুঁকি বিবেচনায় নিয়ে, এই জরুরি খাদ্য পরিস্থিতির ঘোষণা করা হচ্ছে।”

ঐ ঘোষণায় আরও বলা হয়, “সরকার দেশের সকল অভ্যন্তরীণ পক্ষ এবং আন্তর্জাতিক সহযোগীদের প্রতি জনগণকে সহায়তার আহ্বান জানাচ্ছে।”

জাতিসংঘ সতর্ক করেছে যে, চাদে ৫৫ লক্ষ মানুষের চলতি বছরে মানবিক সহায়তার প্রয়োজন হবে। এটি দেশের জনসংখ্যার এক-তৃতীয়াংশেরও বেশি।

বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি মার্চে অনুমান করেছিল যে, জুনে শুরু হতে যাওয়া নিষ্ফলা মৌসুমের সময়ে চাদের ২১ লক্ষ মানুষ “চরমভাবে খাদ্য নিরাপত্তার অভাবে পড়বে”।

ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণ এবং রাশিয়ার উপর পশ্চিমা দেশগুলোর দেওয়া নিষেধাজ্ঞার ফলে, এই দুই দেশ থেকে গম ও অন্যান্য পণ্যের সরবরাহ ব্যাহত হয়েছে। এর ফলে বিশ্বজুড়ে খাদ্যের অভাব নিয়ে উদ্বেগ বৃদ্ধি পেয়েছে।

ইউক্রেন এবং রাশিয়া বিশ্বের ৩০% গম সরবরাহ করে।

শুক্রবার সেনেগালের প্রেসিডেন্ট ম্যাকি সল-কে অভ্যর্থনা জানাচ্ছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। সল আফ্রিকান ইউনিয়নের সভাপতিত্ব করছেন। সলের দফতর জানায় যে, বৈঠকে “খাদ্যশস্য ও সার এর মজুদ ছাড় করা বিষয়ে আলোচনা হবে, যেগুলোকে আটকে রাখায় বিশেষভাবে আফ্রিকার দেশগুলোর উপর প্রতিকুল প্রভাব পড়ে।”

জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী, চাদ বিশ্বের তৃতীয় দরিদ্রতম দেশ।


XS
SM
MD
LG