অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ৩


প্রতীকী ছবি

বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার বোয়ালখালীতে, নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে গণধর্ষণের মামলায় তিন জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর আগে, শনিবার (৪ জুন) সকালে, ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থীর মা চারজনের নামে বোয়ালখালী থানায় মামলা দায়ের করেন।

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন, বোয়ালখালী পৌরসদরের পূর্ব গোমদণ্ডী ৪নং ওয়ার্ডের আলা উদ্দীন হাজি বাড়ীর মো. বাদশা মিয়ার ছেলে এমরান হোসেন সাগর (১৯), ৬নং ওয়ার্ডের মোহাম্মদ রুস্তম আলী বাছেকের ছেলে সানিউল্লাহ আলী রিমন (২০) ও পোপাদিয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের চান মিয়া সওদাগর বাড়ির মোহাম্মদ কফিল উদ্দিনের ছেলে মো. কামাল উদ্দিন (২৬)। এছাড়া, মামলার আরেক অভিযুক্ত, কধুরখীল নাপিতের ঘাটা এলাকার সায়মন (২৪) পলাতক রয়েছে।

ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী জানান, মায়ের সঙ্গে অভিমান করে শুক্রবার রাত ১০টার দিকে ঘর থেকে বের হয়ে গোমদণ্ডী ফুলতল এলাকায় যায় সে। সেখানে আলমগীর নামের পরিচিত এক বন্ধুর সঙ্গে তার দেখা হয়। এ সময় কয়েকজন যুবক তাদের এত রাতে সেখানে অবস্থানের কারণ জানতে চেয়ে অবরুদ্ধ করে। এরপর, তাদের সিএনজি চালিত অটোরিকশা যোগে বোয়ালখালী ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের সামনের একটি কাঁচা সড়কের নির্জন স্থানে নিয়ে যায় তারা। ভুক্তভোগীর বন্ধু আলমগীরের গলায় ধারালো ব্লেড ধরে জিম্মি করে রেখে, রাত ২টার দিকে অভিযুক্তরা মাদকদ্রব্য সেবন করে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে।

সে আরও জানায়, ভোররাত সাড়ে তিনটার দিকে তাকে তার বাসায় পৌঁছে দিয়ে, এ ঘটনা কাউকে না জানানোর জন্য হুমকি দিয়ে যায় অভিযুক্তরা।

সকালে এ ব্যাপারে শিক্ষার্থীর মা থানায় অভিযোগ দিলে, পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত তিনজনকে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার ৩নং অভিযুক্ত সায়মন এখনও পলাতক রয়েছে।

বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল করিম বলেন, “ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ করেছেন তার মা। এ ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পলাতক অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।”

XS
SM
MD
LG