অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

তৃতীয় বিমানবাহী রণতরী চালু করলো চীন


চীনের রাষ্ট্রীয় সম্প্রচার প্রতিষ্ঠান সিসিটিভির প্রকাশিত ভিডিও থেকে নেয়া এই ছবিতে, সাংহাইয়ে একটি শিপইয়ার্ডে পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ) বিমানবাহী ফুজিয়ানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখা যাচ্ছে। ১৭ জুন, ২০২২।

শুক্রবার চীন তাদের তৃতীয় বিমানবাহী রণতরী চালু করেছে। দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, দেশীয়ভাবে ডিজাইন করা এবং নির্মিত ফুজিয়ান যুক্তরাষ্ট্রসহ প্রতিদ্বন্দ্বী শক্তিগুলোকে চীনের সামরিক বাহিনীর আধুনিকায়নের বার্তা পাঠচ্ছে।

রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানায়, বিমানবাহী জাহাজটিতে একটি পূর্ণদৈর্ঘ্যের ফ্লাইট ডেক এবং একটি ক্যাটাপল্ট লঞ্চ সিস্টেম(স্বল্প পরিসর থেকে উড্ডয়ন পদ্ধতি) যুক্ত রয়েছে।

ফুজিয়ান, ২০১৯ সালের শেষের দিকে চালু হওয়া শানডং এবং ১৯৯৮ সালে ইউক্রেন থেকে ক্রয় করা,আগে ব্যবহৃত লিয়াওনিং-এর সঙ্গে যোগ দেবে। চালু করার আগে, লিয়াওনিং-কে দেশের ভেতরেই মেরামত করা হয়।

শুধুমাত্র যুক্তরাষ্ট্রের এ ধরনের রণতরীর সংখ্যা বেশি; দেশটির ১১ টি বিমানবাহী রণতরী রয়েছে।তালিকায় চীনের ঠিক নিচে রয়েছে ব্রিটেন, যাদের ২টি বিমানবাহী রণতরী রয়েছে।

তাইওয়ান এবং দক্ষিণ চীন সাগরে বেইজিং-এর কর্তৃত্ব নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার এই সময়ে, ফুজিয়ানের উদ্বোধন চীনা সামরিক বাহিনীর ক্রমবর্ধমান সক্ষমতাকেই প্রদর্শন করে।

নতুন রণতরীটির নামকরণ করা হয়েছে উপকূলীয় প্রদেশ ফুজিয়ানের নামে। ফুজিয়ান প্রদেশ ও তাইওয়ানের মধ্যে রয়েছে কেবল তাইওয়ান প্রণালী। ফুজিয়ান হচ্ছে চীনের পিপলস লিবারেশান আর্মির পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের কেন্দ্রস্থল।

তাইওয়ান একটি স্ব-শাসিত গণতন্ত্রিক দেশতবে, চীন তাইওয়ানকে তার নিজস্ব ভূখণ্ড বলে মনে করে এবং দ্বীপটিকে বেইজিং-এর নিয়ন্ত্রণে আনতে সব সময় শক্তি প্রয়োগ করে আসছে।

XS
SM
MD
LG