অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কমনওয়েলথ দেশগুলোর সহায়তা চেয়েছে বাংলাদেশ


রুয়ান্ডার রাজধানী কিগালিতে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, “রোহিঙ্গা সঙ্কট ষষ্ঠতম বছরে পদার্পণ করেছে; যা এই অঞ্চলের মানব নিরাপত্তা, শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য হুমকিস্বরূপ।”

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন আরও বলেন, “সকল জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা ও মর্যাদায় রাখাইনে তাদের পূর্বপুরুষদের ভিটায়, মাতৃভূমিতে দ্রুততম প্রত্যাবাসন বাংলাদেশের বাধ্যতামূলক অগ্রাধিকার।”

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) রুয়ান্ডার রাজধানী কিগালিতে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে মোমেন এসব কথা বলেন। তিনি কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের ইশতেহারে রোহিঙ্গা সংকটের ওপর একটি বিশেষ পাঠ অন্তর্ভুক্ত করার জন্য দেশগুলোর প্রশংসা করেন।

মোমেন কমনওয়েলথ দেশগুলোকে আইসিজে দ্বারা 'অস্থায়ী ব্যবস্থা' মেনে চলার জন্য এবং রাখাইন রাজ্যে তাদের নাগরিকদের নিরাপদ, সুরক্ষিত এবং মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের জন্য একটি অনুকূল পরিবেশ তৈরি করার জন্য , মিয়ানমার সরকারকে চাপ দেয়ার আহ্বান জানান।

বৈঠকে গণতন্ত্র, শান্তি ও শাসন, টেকসই অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন এবং কোভিড-পরবর্তী পুনরুদ্ধারের পদক্ষেপের মতো অনেক বৈশ্বিক সমস্যা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

বৈঠকে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং কমনওয়েলথ দেশগুলোর উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল উপস্থিত ছিলেন বলে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

XS
SM
MD
LG