অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সীতাকুণ্ডের অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণ: ৮ মরদেহের পরিচয় মিলেছে ডিএনএ পরীক্ষায়


সীতাকুণ্ডের অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণ: ৮ মরদেহের পরিচয় মিলেছে ডিএনএ পরীক্ষায়
সীতাকুণ্ডের অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণ: ৮ মরদেহের পরিচয় মিলেছে ডিএনএ পরীক্ষায়

বাংলাদেশের সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণের ঘটনায় উদ্ধার হওয়া ২২ অজ্ঞাত মরদেহের মধ্যে, ডিএনএ পরীক্ষার পর, আটজনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে। এ দুর্ঘটনার পর, ৫১ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছিল।

স্বজনদের ডিএনএ টেস্টের মধ্য দিয়ে শনাক্ত হওয়া আটজন হলেন; আখতার হোসেন, আবুল হাশেম, মনির হোসেন, বাবুল মিয়া, সাকিব, মো. রাসেল, মো. শাহজাহান ও আব্দুস সোবহান প্রকাশ আব্দুর রহমান।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে কর্মরত, জেলা পুলিশের উপসহকারী পরিদর্শক (এএসআই) আলাউদ্দিন তালুকদার বলেন, “ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে আটজনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে। তাদের পরিবারের কাছে খবর দেয়া হয়েছে। মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। নিহত ৫১ জনের মধ্যে, ২৯ জনের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছিল। এই আটজনসহ ৩৭ জনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে।”

এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার জানিয়েছেন যে, আটজনের পরিচয় শনাক্ত হওয়ার পর দুইজনের স্বজন হাসপাতালে এসেছেন। সিনিয়র কর্মকর্তাদের উস্থিতিতে মরদেহগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।”

উল্লেখ্য, সীতাকুণ্ড উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নে, বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডের পর, উদ্ধার হওয়া মরদেহ এবং দেহাবশেষের পরিচয় শনাক্ত করার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনের, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ফরেনসিক ল্যাব স্থাপন করেছিল। সে বুথে ফরেনসিক ল্যাবের টিম, মরদেহের পরিচয় শনাক্ত করতে, গত ৯ জুন পর্যন্ত ৪৩ জনের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করেছিল।

XS
SM
MD
LG