অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সৃষ্ট মুদ্রাস্ফীতি ৭ কোটির বেশি মানুষকে দারিদ্র্যে ঠেলে দিয়েছেঃ জাতিসংঘ


শ্রীলঙ্কার কলম্বোতে দেশটির অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে জ্বালানি ঘাটতির কারণে যানগুলো পেট্রোল কেনার জন্য সারিবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে। ৫ জুলাই, ২০২২। ফাইল ছবি।

বৃহস্পতিবার প্রকাশিত জাতিসংঘের এক সমীক্ষায় দেখা যায়, ইউক্রেন যুদ্ধের প্রথম ৩ মাস জ্বালানি ও খাদ্যের বৈশ্বিক খরচ বৃদ্ধি করেছে যা ৭ কোটি ১০ লাখ মানুষকে দারিদ্র্যের দিকে ঠেলে দিয়েছে।

জেনেভায় একটি ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতাকালে জাতিসংঘের উন্নয়ন কর্মসূচির প্রশাসক আচিম স্টেইনার বলেন, ১৫৯টি উন্নয়নশীল দেশের বিশ্লেষণে ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে যে, মূল পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি ইতোমধ্যেই “বিশ্বের সবচেয়ে দরিদ্র পরিবারগুলোর ওপর তাৎক্ষণিক, ধ্বংসাত্মক প্রভাব ফেলেছে।”

সমীক্ষাটিতে দেখা যায়, ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের অর্থনৈতিক ধাক্কাটি ১৮ মাসের কোভিড-১৯ মহামারী লকডাউনের পরে আসে যা বিশ্ব অর্থনীতির ওপর ধীর কিন্তু ক্রমবর্ধমান এবং শক্তিশালী নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছিল। তিনি বলেছেন, মহামারী ইতোমধ্যে প্রায় সাড়ে ১২ কোটি মানুষকে দারিদ্র্যের দিকে ঠেলে দিয়েছে।

স্টেইনার বলেছেন, সরকার কর্তৃক নিষ্পত্তিমূলক এবং “আমূল” পদক্ষেপ গ্রহণে ব্যর্থতা ব্যাপক অস্থিরতা সৃষ্টির ঝুঁকি তৈরি করে। কারণ পরিস্থিতি মোকাবিলায় মানুষের ধৈর্য্য এবং ক্ষমতা শেষ হয়ে যায়

সংকট মোকাবিলায় উন্নয়ন কর্মসূচীর গবেষণা কিছু আর্থিক নীতির সুপারিশ করে। স্টেইনার বলেন, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) –এর মতো বহুপাক্ষিক বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠানগুলো লক্ষ্যভিত্তিক ঋণ এবং সংকট প্রতিকার ব্যবস্থার মাধ্যমে দেশগুলোকে সংকট মোকাবিলা করার অনুমতি দিতে আরও মূলধন সরবরাহ করতে পারে।

এ প্রতিবেদনের কিছু তথ্য এপি এবং রয়টার্স থেকে নেয়া হয়েছে।

XS
SM
MD
LG