অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

খারকিভের স্কুল ও আবাসিক ভবনে রুশ হামলা: ইউক্রেন


খারকিভে ১১ জুলাই ২০২২ তারিখে চালানো রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলায়, আংশিক ধ্বংস এক ভবনের বাইরে ইউক্রেনীয় উদ্ধারকর্মীরা কাজ করার সময়ে পাশ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন এক স্থানীয় বাসিন্দা।

সোমবার দিনের শুরুর দিকে ইউক্রেনের ‍দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভে রুশ বিমান হামলায় একটি স্কুল ও একটি আবাসিক ভবন ধ্বংস হয়ে গিয়েছে বলে ইউক্রেনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। এতে অন্তত তিনজন নিহত ও ২৮ জন আহত হয়েছেন বলেও জানানো হয়।

খারকিভ অঞ্চলের গভর্নর ওলেহ সাইনিহুবভ টেলিগ্রামে জানান যে, বেসামরিক স্থাপনাকে লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে। এর মধ্যে একটি ক্ষেপণাস্ত্র একটি গুদামের কাছাকাছি আঘাত হানে। সাইনিহুবভ আক্রমণগুলোকে “চরম সন্ত্রাস” হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

পূর্বাঞ্চলের চ্যাসিভ ইয়ার শহরে পাঁচতলা এক অ্যাপার্টমেন্ট ভবনে শনিবার রুশ রকেট হামলায় অন্তত ১৫ জন নিহত হন। সেই ঘটনাস্থলে কর্মীরা উদ্ধারকাজ চালানোর মাঝেই নতুন এই হামলার ঘটনাগুলো ঘটল।

জরুরি পরিষেবার কর্মীরা বলছেন যে, দুই ডজন পর্যন্ত মানুষ ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়ে থাকতে পারেন। আটকা পড়া কয়েকজনের সাথে কথা বলা সম্ভব হয়েছে বলেও জানানো হয়।

চ্যাসিভ ইয়ার শহরটি ক্র্যামাটর্স্ক শহর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত। ডনেটস্ক প্রদেশের আরও অভ্যন্তরে প্রবেশের জন্য রাশিয়ার পশ্চিমমুখী অভিযানে, ক্র্যামাটর্স্ক একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্যবস্তু হয়ে উঠবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এক সপ্তাহ আগে পার্শ্ববর্তী লুহানস্ক প্রদেশে নিজেদের বিজয় দাবি করে রাশিয়া।

সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে চ্যাসিভ ইয়ার-এর হামলাটিই সর্বসাম্প্রতিক এমন আঘাত ছিল, যেই হামলাগুলোতে ব্যাপক হারে বেসামরিক মানুষ হতাহত হয়েছে, যদিও রাশিয়া দাবি করে যে তারা শুধু সামরিক স্থাপনাগুলোতেই আঘাত হানে। জুন মাসের শেষ দিকে ক্রেমেনচুকের এক শপিং মলে চালানো হামলায় অন্তত ১৯ জন নিহত হন। এই মাসে দক্ষিণাঞ্চলের ওডেসা অঞ্চলে এক অ্যাপার্টমেন্ট ভবন ও বিনোদন কেন্দ্রে চালানো হামলায় ২১ জন নিহত হয়েছেন।

XS
SM
MD
LG