অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কারাগারে বন্দীদের ফাঁসির জন্য ইরানের প্রাক্তন কর্মকর্তার সুইডেনে কারাদন্ড


স্টকহোমে হামিদ নুরির বিচারের রায় ঘোষণার সাথে সাথে আদালতের বাইরে সমবেত ভুক্তভোগীদের পরিবার উল্লাস প্রকাশ করেন।

স্টকহোমের জেলা আদালত ১৯৮০ এর দশকে ইরান-ইরাক যুদ্ধের সময় যুদ্ধাপরাধ এবং রাজনৈতিক বন্দীদের হত্যার অপরাধে বৃহস্পতিবার একজন প্রাক্তন ইরানী কর্মকর্তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে।

হত্যাকাণ্ডের সময়, হামিদ নুরি ইরানের কারাজের গোহারদাশত কারাগারে ডেপুটি প্রসিকিউটরের সহকারী ছিলেন। তখন তাঁর বয়স ছিল ২৭ বছর। প্রসিকিউটরদের মতে, এই হত্যাকাণ্ডের নির্দেশ দিয়েছিলেন তৎকালীন ইরানের নেতা আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ খোমেনি। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বন্দিরা ইরানের একটি বিরোধী দল মুজাহেদিন-ই-খালকের অনুগত ছিল।

নুরি যিনি কিনা এখন ৬১ বছর বয়সী, ২০১৯ সালে স্টকহোম বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল৷ তিনি অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷

সুইডিশ আদালত বলেছে যে তারা বিশ্বাস করে যে আন্তর্জাতিক সশস্ত্র সংঘাতের কারণে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা "আন্তর্জাতিক মানবিক আইনের গুরুতর লঙ্ঘন"।

কোর্টহাউজ নিউজ সার্ভিস জানিয়েছে, রায় ঘোষণার সাথে সাথে আদালতের বাইরে সমবেত ভুক্তভোগীদের পরিবার উল্লাস প্রকাশ করেন। পুরো বিচার চলাকালে অনেক আত্মীয় স্বজন সাক্ষ্য দিয়েছেন।

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রকের মুখপাত্র নাসের কানানি এক বিবৃতিতে বলেছেন, ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রক বিশ্বাস করে এই রায় "রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং এর কোনো আইনি বৈধতা নেই,"।

পর্যবেক্ষকরা বলেছেন যে এই রায় ইরান ও সুইডেনের মধ্যে ইতোমধ্যেকার উত্তেজনাপূর্ণ সম্পর্ককে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। রাজনৈতিক সুবিধা পেতে বিদেশী নাগরিকদের আটকের জন্য ইরানের নিন্দা করা হয়েছে।

এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবেন নুরী। মুক্তি পেলে তাকে সুইডেন থেকে বহিষ্কার করা হবে।

এই প্রতিবেদনের জন্য কিছু তথ্য রয়টার্স, এএফপি এবং এপি থেকে নেয়া হয়েছে।

XS
SM
MD
LG