অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাইডেনের মধ্যপ্রাচ্য সফর; ইরানের নৌবাহিনী ভারত মহাসাগরীয় ড্রোন ডিভিশন ঘোষণা করেছে


ছবিতে ড্রোনগুলো ভারত মহাসাগরে ইরানের একটি সামরিক জাহাজে অবস্থিত। ১৫ জুলাই, ২০২২। (ছবি,রয়টার্স)

শুক্রবার ইরান ভারত মহাসাগরে তাদের প্রথম নৌ ড্রোন বহনকারী ডিভিশনের কথা ঘোষণা করেছে বলে দেশটির রাষ্ট্রীয় টিভি জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইরানের হুমকি মোকাবিলায় আরব সমর্থন জড়ো করতে মধ্যপ্রাচ্য সফরের সময়কালে ইরান এ ঘোষণা দেয়।

সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সালিভ্যান বলেন, ওয়াশিংটন বিশ্বাস করে, ইরান রাশিয়াকে কয়েকশো ড্রোন সরবরাহ করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে যার মধ্যে কিছু সশস্ত্র ড্রোনও রয়েছে। ইরান রুশ বাহিনীকে সেগুলো ব্যবহার করার জন্য প্রশিক্ষণ দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

শুক্রবার ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমিরাবদুল্ললাহিয়ান ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে ফোনে কথা বলার সময় সালিভ্যানের বিবৃতি অস্বীকার করেছেন বলে ইরানের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাইডেন এবং ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী ইয়ার ল্যাপিড জেরুজালেমে ইরানের পারমাণবিক অস্ত্র প্রত্যাখ্যান করার জন্য একটি যৌথ অঙ্গীকারে স্বাক্ষর করেছেন। এটি বিশ্বশক্তিগুলো দ্বারা ইসরাইলের “বিশ্বাসযোগ্য সামরিক হুমকি” সংক্রান্ত আহ্বানকে মেনে নেয়ার দিকে একটি আপাত পদক্ষেপ।

ইরান পারমাণবিক অস্ত্রের কথা অস্বীকার করে বলেছে, তাদের পারমাণবিক কর্মসূচি শুধু শান্তিপূর্ণ উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হবে।

২০১৫ সালে তেহরান ছয়টি বৃহৎ শক্তির সাথে একটি চুক্তি করে। চুক্তির অধীনে ইরান আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা থেকে ছাড়ের বিনিময়ে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির প্রক্রিয়া আরও কঠোর করার লক্ষ্যে তার ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কর্মসূচি সীমিত করে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালে চুক্তিটি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন এবং ইরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করেছিলেন। এর ফলে প্রায় এক বছর পরে তেহরান পারমাণবিক সীমা লঙ্ঘন শুরু করতে প্ররোচিত হয়েছিল।

চুক্তি পুনরুজ্জীবিত করার কূটনৈতিক প্রচেষ্টা এখন পর্যন্ত ব্যর্থ হয়েছে।

XS
SM
MD
LG