অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

তালিবান কি ডিজিটাল জগতে নিজেদের প্রভাব হারাচ্ছে?


কাবুলে অবস্থিত মাইওয়ান্দ টিভি স্টেশনের বার্তাকক্ষে এক আফগান সাংবাদিক তালিবান মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদের পাঠানো বার্তা দেখছেন। ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। (ফাইল ফটো)

তালিবান মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদের আনুষ্ঠানিক টুইটার অ্যাকাউন্টে ৬,৩০,০০০-এর বেশি ফলোয়ার রয়েছে। কিন্তু তার প্রোফাইলের নিচে থাকা একমাত্র ওয়েব অ্যাড্রেসটিতে ক্লিক করলে তা একটি বন্ধ হয়ে যাওয়া ওয়েবসাইটে নিয়ে যায়।

তালিবান যখন আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনীর সাথে লড়াই করছিল, তখন মুজাহিদ ও তার দলকে অনলাইন প্রোপাগান্ডার গুরু হিসেবে দেখা হত। এখন, যখন কিনা তারা কার্যত সরকার নিয়ন্ত্রণ করছে, তখন তাদের ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম সেবা নিষেধাজ্ঞা, প্রতিকূল প্রচারণা ও সামাজিক মাধ্যম থেকে সরিয়ে ফেলার মত পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে।

ফেসবুকের মূল কোম্পানী, মেটা গত সপ্তাহে রাষ্ট্র-পরিচালিত রেডিও টেলিভিশন আফগানিস্তান (আরটিএ) এবং বাখতার সংবাদ সংস্থার ফেসবুক ও ইন্সটাগ্রাম অ্যাকাউন্টগুলো বন্ধ করে দেয়।

অ্যাকাউন্টগুলো যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত পূর্ববর্তী আফগান সরকারের আমলে খোলা হয়েছিল। তালিবান ক্ষমতা দখল করে নেওয়ার সময়ে এই অ্যাকাউন্টগুলোও তাদের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়, যেগুলোকে তারা নিজেদের সরকারের সংবাদ প্রচারে ব্যবহার করছিল।

মেটা’র এক মুখপাত্র ভিওএ-কে বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রের আইনে তালিবানকে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে, এবং আমাদের ঝুঁকিপূর্ণ প্রতিষ্ঠান নীতির আওতায় তাদেরকে আমাদের পরিষেবা ব্যবহারে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এর অর্থ হল তালিবান পরিচালিত বা তাদের পক্ষে পরিচালিত কোন অ্যাকাউন্ট আমরা সরিয়ে ফেলি এবং তাদের প্রশংসা, সমর্থন বা তাদের প্রতিনিধিত্ব করাকে বাধা দেই।”

গুগলও একই নীতি অনুসরণ করে।

এই সংবাদের জন্য যখন ভিওএ মন্তব্য নেওয়ার চেষ্টা করছিল, তখন তালিবানের একটি ইউটিউব রেডিও চ্যানেলের লিংক গুগলকে প্রসঙ্গ সূত্র হিসেবে পাঠানো হয়েছিল। ২৪ ঘন্টারও কম সময়ের মধ্যে ঐ চ্যানেলটি বন্ধ করে দেওয়া হয়।

গুগলের এক মুখপাত্র ভিওএ-কে বলেন, “প্রযোজ্য ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা আইনগুলো মেনে চলতে গুগল প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং নিজেদের টার্মস অফ সার্ভিসের আওতাধীন এই সংশ্লিষ্ট নীতিগুলো [গুগল] প্রয়োগ করে থাকে। তাই, আমরা যদি এমন কোন অ্যাকাউন্ট খুঁজে পাই যা তালিবানের, তাহলে আমরা সেটা বন্ধ করে দেই।”

XS
SM
MD
LG