অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জাতিসংঘ মহাসচিব ও তুরস্কের প্রেসিডেন্টকে লেভিভে অভ্যর্থনা জানালেন জেলেন্সকি


ইউক্রেনের খারকিভে রুশ সামরিক হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত এক আবাসিক ভবনে দমকলকর্মীরা কাজ করছেন, ১৭ আগস্ট ২০২২। (স্টেট ইমার্জেন্সি সার্ভিসেস অফ ইউক্রেন এর দেওয়া ছবি/রয়টার্সের মাধ্যমে প্রাপ্ত)
ইউক্রেনের খারকিভে রুশ সামরিক হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত এক আবাসিক ভবনে দমকলকর্মীরা কাজ করছেন, ১৭ আগস্ট ২০২২। (স্টেট ইমার্জেন্সি সার্ভিসেস অফ ইউক্রেন এর দেওয়া ছবি/রয়টার্সের মাধ্যমে প্রাপ্ত)

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতেরেস এবং তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান, ইউক্রেনের পশ্চিমাঞ্চলের লেভিভ শহরে, বৃহস্পতিবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেন্সকির সাথে সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে। তাদের আলোচ্যসূচির মধ্যে রয়েছে, বৈশ্বিক খাদ্য সংকট, পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রতি হুমকি, এবং রাশিয়ার শুরু করা যুদ্ধটির একটি রাজনৈতিক সমাধান খুঁজে বের করা।

খাদ্য সংকট হ্রাসের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। জাতিসংঘ ও তুরস্কের মধ্যস্থতায় জুলাইয়ের শেষদিকে রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে এক চুক্তি হয়, যার আওতায় এখন ইউক্রেনের শস্যবাহী জাহাজগুলো ছেড়ে যেতে পারছে।

গুতেরেসের শুক্রবার ওডেসা বন্দর সফরের কথা রয়েছে। এরপর শনিবার তিনি ইস্তাম্বুলে জয়েন্ট কোঅর্ডিনেশন সেন্টার (জেসিসি) পরিদর্শন করবেন। জেসিসি ঐ চুক্তির আওতায় রফতানি ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ করছে। চুক্তির আ্ওতায়, রাশিয়ার দাবি মেনে, বন্দরে আসা বা বন্দর ছেড়ে যাওয়া জাহাজগুলোও পরিদর্শন করা হয়।

সেন্টারটি জানায় যে, তারা আশা করছে, বৃহস্পতিবার পরিদর্শন-দলগুলো গত সপ্তাহে ইউক্রেন ছেড়ে আসা চারটি জাহাজ পরিদর্শন করবে।

জাহাজগুলোর মধ্যে একটি জাহাজ হল অসপ্রে এস, যা ভুট্টা নিয়ে তুরস্ক যাচ্ছে। এছাড়াও রয়েছে গম নিয়ে তুরস্কের উদ্দেশ্যে যাত্রা করা রামুস নামের জাহাজ। অপর দু’টি জাহাজ হল জিবুতির উদ্দেশ্যে গম বহনকারী জাহাজ ব্রেভ কমান্ডার, এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় ভুট্টা বহনকারী জাহাজ বোনিটা।

এছাড়াও ইউক্রেনের উদ্দেশ্যে যাওয়ার পথে অপর চারটি জাহাজ পরিদর্শন করার কথা রয়েছে। রাশিয়া নিশ্চিত করতে চাইছে যে, ইউক্রেনে আসা জাহাজগুলো ইউক্রেনের বাহিনীর জন্য কোন অস্ত্র নিয়ে আসছে না।

১ আগস্ট রফতানি শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত ২৪টি জাহাজ ইউক্রেন ছেড়ে গেছে।

XS
SM
MD
LG