অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিশ্বকাপের আগে দেরিতে বেতন দেওয়ায় প্রতিবাদী শ্রমিকদের আটক করেছে কাতার


কাতারের মানচিত্র। ফাইল ছবি।

সম্প্রতি কাতার ৬০ জন বিদেশী শ্রমিককে গ্রেপ্তার করেছে। তারা কয়েক মাস ধরে বেতন পাচ্ছিলো না বলে প্রতিবাদ করেছিল। তাদের কয়েকজনকে কাতার থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। ২০২২ সালের ফিফা বিশ্বকাপ আয়োজন করার মাত্র তিন মাস আগে দোহা এমন কার্যক্রম চালালো । এ তথ্য জানিয়েছে একটি অ্যাডভোকেসি গ্রুপ।

ঘটনার তদন্তকারী একটি শ্রম পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠানের প্রধান বলেছেন, এই আটকের ঘটনা, শ্রমিকদের প্রতি ‘আরও ভাল আচরণ করার’ প্রতি কাতারের যে প্রতিশ্রুতি ছিল, তার প্রতি নতুন করে সন্দেহ সৃষ্টি হয়েছে। ইকুডেম রিসার্চ গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক মোস্তফা কাদরী প্রশ্ন করেন, “এ ঘটানা সত্যিই কি বাস্তবতাকে প্রকাশ করছে?”

অনলাইনে পোস্ট করা ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, প্রায় ৬০ জন ক্ষুব্দ শ্রমিক তাদের বেতন নিয়ে প্রতিবাদ করছেন।গত ১৪ আগস্ট তারা আল বান্ডারি ইন্টারন্যাশনাল গ্রুপের দোহা অফিসের বাইরে বিক্ষোভ করছিলেন। এই বিশাল ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানটি নির্মাণ, রিয়েল এস্টেট, হোটেল, খাদ্য পরিষেবা এবং আরও কিছু ব্যাবসা পরিচালনা করে। ইকুইডেম জানিয়েছে বিক্ষোভকারীদের মধ্যে কেউ কেউ আছেন, যারা ৭ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না।

বিক্ষোভকারীরা দোহার সি রিং রোডের আল শৌমুখ টাওয়ারের সামনে একটি সড়ক-মোড় অবরোধ করে।

কাদরি বলেন, পুলিশ পরে বিক্ষোভকারীদের গ্রেপ্তার করে এবং তাদেরকে একটি আটককেন্দ্রে হস্তান্তর করে। এয়ার কন্ডিশন ব্যবস্থা বিহীন এই আটক কেন্দ্রের শ্বাসরুদ্ধকর গরমে থাকার বর্ণনা দেন অনেকে। এই সপ্তাহে দোহার তাপমাত্রা প্রায় ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১০৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি ফারেনহাইট)-এ পৌঁছেছে।

কাতার শ্রমিকদের জন্য ন্যূনতম মাসিক মজুরি নির্ধারণ করেছে ১ হাজার কাতারি রিয়াল (২৭৫ ডলার)। এছাড়া কর্মচারীদের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য ও আবাসন ভাতার ব্যবস্থা করেছে, যা তারা তাদের নিয়োগকর্তাদের কাছ থেকে সরাসরি পান না।

কাদরির মতো সক্রিয়বাদীরা, আরও কিছু পদক্ষেপ নেয়ার জন্য দোহার প্রতি আহবান জানিয়েছেন। বিশেষ করে, শ্রমিকরা যেন সময়মতো তাদের বেতন পান এবং তাদের অবমাননাকারী নিয়োগকর্তাদের কাছ থেকে সুরক্ষিত থাকেন তা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

XS
SM
MD
LG