অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

শিনজো আবে বাংলাদেশের খাঁটি বন্ধু ছিলেন: শোক সভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন


ফাইল ছবি- তৎকালীন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে টোকিওতে তার সরকারী বাসভবনে ট্রান্স-প্যাসিফিক পার্টনারশিপ বা টিপিপি সম্পর্কিত এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতা করছেন।১৫ মার্চ ২০১৩।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, “জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে বাংলাদেশের খাঁটি বন্ধু ছিলেন। আঞ্চলিক ও বিশ্ব শান্তির পক্ষে অবদানের জন্য তিনি স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।”

আব্দুল মোমেন বলেন, “শিনজো আবের আকস্মিক মৃত্যুতে সারা বিশ্বের অন্তত ২৫৯টি দেশ ও সংস্থার পক্ষ থেকে ১ হাজার ৭ শ শোকবার্তা পাঠানো হয়েছে। এতে প্রমাণ করে-শিনজো আবে শুধু জাপানের একজন প্রথিতযশা নেতা নয়, বরং তিনি সারা বিশ্বের একজন বরেণ্য ব্যক্তিত্ব।”

বৃহস্পতিবার (১ সেপ্টেম্বর) সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট হলে, জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের স্মরণে আয়োজিত শোক সভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শোকবার্তায় বলেছেন; শিনজো আবের মতো একজন রাষ্ট্রনায়কের মৃত্যু শুধু জাপানের জন্য ক্ষতি নয়, বরং তার নেতৃত্ব, চিন্তা, স্বপ্ন ও প্রজ্ঞা থেকে সারা বিশ্ব বঞ্চিত হয়েছে।”

“প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রয়াত শিনজো আবের স্ত্রী আকি আবের নিকট প্রেরিত শোকবার্তায়ও বলেছেন; শিনজো আবে বাংলাদেশের প্রকৃত বন্ধু ছিলেন এবং ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশের উন্নত রাষ্ট্রের মর্যাদা অর্জনের প্রচেষ্টায় তিনি অবিচল সহযোগী ছিলেন;” জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন।

ড. মোমেন বলেন, “শিনজো আবের এই অসময়ে চলে যাওয়ায়, বিশ্ব একজন অসাধারণ ও দূরদর্শী নেতাকে হারিয়েছে।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জাপানিজ স্টাডিজ বিভাগ ও ঢাকায় অবস্থিত জাপান দূতাবাসের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এ শোক সভায় সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো: আখতারুজ্জামান। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জাপানিজ স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আব্দুল্লাহ আল মামুন।

XS
SM
MD
LG