অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

খুলনায় অনাবৃষ্টির কারণে লক্ষ্যে পৌঁছাবে না আমনের আবাদ


খুলনায় অনাবৃষ্টির কারণে লক্ষ্যে পৌঁছাবে না আমনের আবাদ

অনাবৃষ্টির কারণে আমন ধান চাষ প্রক্রিয়া প্রায় দেড় মাস বিলম্বিত হওয়ায়, বাংলাদেশের খুলনা জেলার ৮০ হাজারের বেশি কৃষকের আশঙ্কা যে তারা এ বছর উৎপাদন খরচ তুলতে পারবেন না। এদিকে, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বর্ষা মৌসুমে ৯৩ হাজার একশ’ ৭০ হেক্টর জমিতে আমন আবাদে লক্ষ্য নির্ধারণ করলেও, এ পর্যন্ত মাত্র ১৬ হাজার পাঁচশ’ ৫৫ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত বছরের তুলনায় এ বছর খুলনা অঞ্চলে পাঁচ ভাগের এক ভাগ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

খুলনায়, ২০২১ সালের জুন মাসে ৩৮৮ দশমিক ৮৯ মিলিমিটার, জুলাই মাসে ৫০৬ মিলিমিটার ও আগস্ট মাসে ২১৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়। এ বছরের জুন মাসে ৯৪ দশমিক ৩৬ মিলিমিটার, জুলাই মাসে ৯১ দশমিক ২৭ মিলিমিটার এবং ২৩ আগস্ট পর্যন্ত ১৬১ দশমিক ১৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

চলতি মৌসুমে, জেলায় তিন হাজার ছয়শ’ ৩০ হেক্টর জমিতে আউশ, এক হাজার তিনশ’ ১৬ হেক্টর জমিতে পাট, ৩৫ হেক্টর জমিতে গ্রীষ্মকালীন টমেটো, দুইশ’ ৭৩ হেক্টর জমিতে তরমুজ, দুইশ’ ৯৫ হেক্টর জমিতে সীম, আট হাজার দুইশ’ ৬৫ হেক্টর জমিতে শীতকালীন শাক-সবজির আবাদ হয়েছে। অধিকাংশ ফসলে সেচ দিতে হচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খুলনার উপ-পরিচালক মো. হাফিজুর রহমান বলেন, “ফুলতলা, তেরখাদা, রূপসা, বটিয়াঘাটা, ডুমুরিয়া, দিঘলিয়া ও দাকোপ উপজেলায় নদী থেকে পানি উত্তোলন করে আমন আবাদ করা হচ্ছে। পাইকগাছা ও কয়রা উপজেলার নদীর পানি এখনও নোনা থাকায়, এ দুই উপজেলায় নদীর পানি ব্যবহার করা যাচ্ছে না। তবে বীজতলা শতভাগ সম্পন্ন হলেও আমন উৎপাদন কম হবে।”

পাইকগাছা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, কাঙ্খিত বৃষ্টি না হওয়ায় আমন রোপনের অগ্রগতি কম। রোপনের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে বলেও জানান তিনি। এ পর্যন্ত ৪০ শতাংশ আমন আবাদ হয়েছে বলে জানান জাহাঙ্গীর আলম।

দাকোপ উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, “আমন চাষে বিলম্বের পাশাপাশি, তরমুজ ও সবজির উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।”

XS
SM
MD
LG