অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বন্যাকবলিত পাকিস্তান প্রকৃতির অন্ধ প্রতিশাধের শিকার: জাতিসংঘ মহাসচিব


পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর দফতরের প্রকাশিত এই ছবিতে, রাজধানী ইসলামাবাদের প্রধানমন্ত্রী ভবনে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ (ডানে) ও জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতেরেসকে দেখা যাচ্ছে, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২২।

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টোনিও গুতেরেস পাকিস্তানের বিপর্যয়কর বন্যার কথা উল্লেখ করে শুক্রবার বলেন যে, “মানবজাতি প্রকৃতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে এবং প্রকৃতিও পাল্টা শোধ নিচ্ছে।”

দক্ষিণ এশিয়ার এই বন্যাকবলিত দেশটির প্রতি সংহতি প্রকাশের উদ্দেশ্যে, তার দুই দিনের সফরের শুরুতে ইসলামাবাদে বক্তব্য রাখেন গুতেরেস। তিনি বলেন, প্রকৃতি অন্ধ এবং প্রকৃতি তাদের বিরুদ্ধে আঘাত হানছে না, যারা কিনা প্রকৃতির বিরুদ্ধে যুদ্ধে বেশি অবদান রেখেছে।

গুতেরেস বলেন, “মনে হচ্ছে প্রকৃতি ভুল জায়গায় আঘাত করেছে। যারা জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য আরও বেশি দায়ী, তাদের এ ধরণের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হওয়া উচিৎ ছিল।”

তিনি পাকিস্তানকে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর একটি হিসেবে উল্লেখ করেন।

২২ কোটি জনসংখ্যার এই দেশটি বৈশ্বিক গ্রীনহাউজ গ্যাস নিঃসরণে ১% এরও কম অবদান রাখে। কিন্তু তারা অব্যাহত ভাবে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে থাকা ১০টি দেশের তালিকায় থাকে।

তিনি বলেন, “তাই, এমন পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দায়িত্ব রয়েছে পাকিস্তানকে ব্যাপকভাবে সহায়তা করার, এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দায়িত্ব রয়েছে দ্রুত নিঃসরণ হ্রাসের প্রয়োজনীয়তাকে গুরুতরভাবে বিবেচনা করার।”

এই জরুরি অবস্থা মোকাবেলায় পাকিস্তানের প্রতি আন্তর্জাতিক সহায়তা বৃদ্ধির জন্য আবারও আহ্বান জানান গুতেরেস। এছাড়াও তিনি জাতিসংঘের আরও সম্পদ ব্যবহারেরও প্রতিশ্রুতি দেন।

বন্যার্তদের সাহায্যার্থে ১৬ কোটি ডলারের আন্তর্জাতিক সহায়তার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। বিশ্ব খাদ্য সংস্থা বলেছে যে, ৬৪ লক্ষেরও বেশি বন্যার্ত মানুষের মানবিক সহায়তার প্রয়োজন।



XS
SM
MD
LG