অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সিরিয়া যুদ্ধের তীব্রতা বৃদ্ধি; ক্রমবর্ধমান ঝুঁকিতে বেসামরিক মানুষ


সিরিয়ার পূর্ব আলেপ্পোতে এক সময়ের বিদ্রোহী-নিয়ন্ত্রিত সালাহেদিনে ধ্বংস্তূপের মধ্য দিয়ে বাসিন্দারা হাঁটছেন। ২০ জানুয়ারি, ২০১৭। ফাইল ছবি।

জাতিসংঘের তদন্তকারীরা সতর্ক করেছেন যে, লাখ লাখ সিরীয় তাদের দেশের উত্তর সীমান্তে যুদ্ধ তীব্র হওয়ার কারণে আরও বেশি মৃত্যু ও আহত হওয়ার সম্ভাবনার মুখোমুখি হচ্ছে। সিরীয়রা এক দশকের বেশি সময় ধরে যুদ্ধের মধ্যে রয়েছে। সিরিয়া সম্পর্কিত স্বাধীন আন্তর্জাতিক তদন্ত কমিশন আগামী সপ্তাহে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে সর্বশেষ প্রতিবেদন জমা দেবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ১ জানুয়ারি থেকে ৩০ জুনের মধ্যে পর্যালোচনাধীন সময়কালে উত্তর-পশ্চিম সিরিয়ায় সরকারি বিমান হামলার সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে।

প্রতিবেদনে উত্তর আলেপ্পোতে হামলার বিবরণ দেয়া হয়েছে, যাতে কমপক্ষে ৯২ জন বেসামরিক মানুষ আহত ও নিহত হয়েছে, বেসামরিক বাসগৃহ, স্কুল, মসজিদ, চিকিৎসা স্থাপনা এবং প্রশাসনিক ভবন ধ্বংস হয়েছে।

কমিশনের চেয়ারম্যান পাওলো পিনহেইরো বলেছেন, সরকারপন্থী বাহিনী ও সশস্ত্র বিরোধী দলগুলোর মধ্যে লড়াইয়ে শিশুসহ বহু বেসামরিক মানুষ আহত ও নিহত হয়েছে।

পিনহেইরো বলেছেন যে এই দীর্ঘস্থায়ী সংঘাতে ইসরাইল, যুক্তরাষ্ট্র এবং তুরস্কের সামরিক অংশগ্রহণ অব্যাহত রয়েছে।

প্রতিবেদনে আল-হাউল শিবিরের ক্রমাবনতির অবস্থার কথা তুলে ধরা হয়েছে, যেখানে ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের কয়েক হাজার প্রাক্তন স্ত্রী এবং সন্তানদের বন্দি করা হচ্ছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে, হাজার হাজার সিরীয় জোরপূর্বক নিখোঁজ বা নিখোঁজ রয়েছে। এতে বলা হয়েছে, যারা তাদের প্রিয়জনকে খুঁজছে তারা প্রায়শই গ্রেপ্তার, চাঁদাবাজি এবং নির্যাতিত হওয়ার ঝুঁকিতে পড়ছেন।

কমিশনের সদস্যরা প্রতিবেশী দেশগুলোতে সিরীয় শরণার্থীদের ব্যাপক প্রত্যাবর্তনের পরিকল্পনা প্রত্যাহার করার আহ্বান জানান কারণ এখনো তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যাচ্ছে না।

XS
SM
MD
LG